২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দেলদুয়ার ও নাগরপুরে দুটি সড়ক চলাচলের অনুপযোগী

নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল, ১৩ আগস্ট ॥ নিম্নমানের কাজ, দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করা ও প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার ও নাগরপুর উপজেলার দুটি সড়ক যানবাহন চলাচলের সম্পূর্ণ অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ঈদে যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ এবং একটানা বৃষ্টিতে রাস্তার দু’পাশের মাটি ধসে রাস্তা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। টাঙ্গাইল সড়ক বিভাগের চরম গাফিলতি, উদাসিনতা ও দায়িত্বে অবহেলার কারণে দুই উপজেলাবাসী চরম দুর্ভোগে পড়েছে। প্রধান সড়ক দুটি চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়ার পরও সড়ক বিভাগ কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না বলে এলাকাবাসী ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা অভিযোগ করেছেন।

জানা যায়, টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে দেলদুয়ার-পাকুল্লা সড়কে প্রায় সাড়ে ৫ কিলোমিটার, দেলদুয়ার-টাঙ্গাইল সড়কে প্রায় ১২ কিলোমিটার, দেলদুয়ার-এলাসিন সড়কে প্রায় ৭ কিলোমিটার এবং স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল বিভাগের অধীনে দেলদুয়ার-ছিলিমপুর সড়কে প্রায় ৭ কিলোমিটার, লাউহাটী-এলাসিন সড়কে প্রায় ৭ কিলোমিটার সবচেয়ে বেশি খারাপ। এছাড়া টাঙ্গাইল-নাগরপুর সড়কটি ব্যাপক ভাঙ্গার কারণে এ সড়কে যানবাহন চলাচল প্রায় বন্ধ হওয়ার পথে। এসব রাস্তার প্রায় পুরোটাই ভাঙ্গা এবং বড় বড় খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার দু’পাশ ভেঙ্গে সরু হয়ে গেছে। রাস্তার ইট খোয়া উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তায় পানি জমে।

এসব রাস্তায় এখন ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। এতে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। টাঙ্গাইল জেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র সরাসরি মাধ্যম টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার ও নাগরপুর এই দুটি রাস্তা। এ ব্যাপারে দেলদুয়ার উপজেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সবুর আহমেদ বলেন, রাস্তাগুলো অত্যন্ত ভাঙ্গাচুরা ও যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে গেছে। ফলে চালকদের ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চালাতে হচ্ছে। দেলদুয়ার উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী খ.ম ফরহাদ হোসাইন বলেন, লাউহাটী-এলাসিন সড়কটি নদী ভাঙ্গনকবলিত হওয়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে আমাদের লোকরাও কাজ করছে। তাছাড়া আমাদের অধীন অন্যান্য সড়কগুলো জরুরীভিত্তিতে স্থানীয়ভাবে জোড়াতালি দিয়ে চলাচলের উপযোগী করা হচ্ছে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী টিএম নূর-ই-আলম জানান, টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার সড়কের টেন্ডার ইতোমধ্যে হয়ে গেছে। এখন কাজ শুরু করা হবে। এছাড়া টাঙ্গাইল-নাগরপুর সড়কের কাজ টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।