২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাগর পাড়ের ২৫ হাজার মানুষ আতঙ্কে

  • রাঙ্গাবালীর বাঁধে ভাঙ্গন

স্টাফ রিপোর্টার, গলাচিপা ॥ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার সাগরপাড়ের চরমোন্তাজ ইউনিয়নে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৫৫/৪ নম্বর পোল্ডারের বেড়িবাঁধের ৩টি পয়েন্ট ভয়াবহ ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে। ঘূর্ণিঝড় কোমেনের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বাঁধের অনেক এলাকা। ভাঙ্গনকবলিত এলাকার ৯টি গ্রামের বাসিন্দারা রয়েছে আতঙ্কে। পরিবার-পরিজন নিয়ে নির্ঘুম রাত কাটছে তাদের।

সরেজমিন দেখা গেছে, চরমোন্তাজ বৌবাজার এলাকার বেড়িবাঁধের প্রায় এক কিলোমিটার, রুহুল সিকদারের বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় প্রায় দেড় কিলোমিটার এবং ৩২ দশমিক ৫ পয়েন্টে তিন কিলোমিটার বাঁধের অধিকাংশই বিলীন হয়ে গেছে। রিভার সাইডের স্লোপ, টপ ও কান্ট্রি সাইডের স্লোপের বেশিরভাগ ভেঙ্গে গেছে। এসব এলাকার বেড়িবাঁধের কান্ট্রি সাইডে সামান্য কিছু মাটি অবশিষ্ট আছে। যে কোন সময় তা বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। এরই মধ্যে অমাবশ্যার জো শুরু হয়ে গেছে। জোয়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল হয়ে উঠেছে। পূবের বাতাসে বেড়েছে পানির প্রবাহ। তাই যে কোন মুহূর্তে পোল্ডারের ভাঙ্গন কবলিত তিনটি পয়েন্ট দিয়ে পানিতে প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা করছে লোকজন। বৃহস্পতিবার সকালে একটি পয়েন্ট দিয়ে পানি প্রবাহিত হতেও দেখা গেছে।

চরমোন্তাজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মোশারেফ খান জানান, এ ইউনিয়নের চারদিকেই নদী ও সাগর। তাই সাগর একটু উত্তাল বা নিম্নচাপের সৃষ্টি হলেই তীব্র ঢেউ আঘাত হেনে বাঁধে ধস নামায়। এ মুহূর্তে অমাবশ্যার জোর কারণেও বাঁধে ধস নামতে পারে। এমনিতেই ২৫ হাজার জনসংখ্যা অধ্যুষিত এ ইউনিয়নে নেই পর্যাপ্ত সংখ্যক ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র বা সাইক্লোন শেল্টার। ফলে মানুষের সময় কাটছে তীব্র আতঙ্কে।