১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুষ্টিয়ায় শোক দিবসে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে যুবলীগ কর্মী নিহত

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুষ্টিয়া, ১৫ আগস্ট ॥ কুষ্টিয়ায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচী নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত ও অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে। শনিবার বেলা সাড়ে বারোটার দিকে শহরের মজমপুর গেট বাসস্ট্যান্ডের কাছে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেয়া ও শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে যুবলীগ কর্মী সবুজ (২২) ছুরিকাঘাতে নিহত হন। গুরুতর আহত যুবলীগ কর্মী বিদ্যুত ও আজমলকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে র‌্যাব-পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা যায়, জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগ একটি শোক র‌্যালি বের করে। র‌্যালিটি মোহিনী মিল গেট থেকে শুরু হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে মজমপুর গেট বাসস্ট্যান্ডের কাছে গিয়ে শেষ হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন নেতৃবৃন্দ। এ সময় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল থেকে একটু দূরেই অবস্থান নেয় কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোমিনুর রহমান মোমিজের কর্মী-সমর্থকরা। পরে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন সবুজের নেতৃত্বে একটি দল সেখানে পৌঁছলে উভয় দলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয় মোমিনুর রহমান মোমিজের কর্মী সবুজ (২৩), বিদ্যুত (৩৮) ও আজমল হোসেন (২৮)। তাদের ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সবুজ দুপুর একটার দিকে হাসপাতালে মারা যান। আহত বিদ্যুত ও আজমল হোসেনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানান। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

পুলিশের উপস্থিতিতে হকিস্টিক ও লাঠিসোটা নিয়ে মহড়া দেয় দু’পক্ষ। এ সময় আতঙ্কে দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ হয়ে যায়। নিহত সবুজ শহরতলীর ঢাকা ঝালুপাড়া এলাকার মোবারকের ছেলে।

শহর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোমিনুর রহমান মোমিজ নিহত সবুজকে যুবলীগ কর্মী বলে দাবি করেন। কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম জানান, সংঘর্ষের সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত তিনজনকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে দুপুর একটার দিকে সবুজ নামে একজন অপারেশন টেবিলে মারা যান। ঘটনার পর শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে র‌্যাব-পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। তিনি বলেন, হত্যাকারী যেই হোক, তাকে ছাড় দেয়া হবে না। খুনিকে খুব দ্রুত আটক করা হবে। উল্লেখ্য, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন নিয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সমর্থিত সভাপতি সদর উদ্দিন খান ও সাধারণ সম্পাদক আজগার আলী এবং বিদ্রোহী গ্রুপ সভাপতি পৌর মেয়র আনোয়ার আলী ও সাধারণ সম্পাদক কুমারখালী-খোকসা আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রউফের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে।

নির্বাচিত সংবাদ