১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পরকীয়ার সন্দেহ

  • আশুলিয়ায় এক নারী পোশাক শ্রমিককে বর্বর নির্যাতন করল গৃহবধূ

নিজস্ব সংবাদদাতা, সাভার, ১৫ আগস্ট ॥ স্বামীর সঙ্গে পরকীয়ার সন্দেহে এক নারী পোশাক শ্রমিকের ওপর বর্বর নির্যাতন চালিয়েছে গৃহবধূ। অনেকটা ফিল্মি স্টাইলে প্রথমে ওই নারীকে বেধড়ক পেটানো হয়। এরপর তার চুল কেটে, মুখে কালি লাগিয়ে, গলায় জুতোর মালা পরিয়ে রাস্তা দিয়ে ঘোরানো হয়। পরে স্বামীসহ নির্যাতনকারী ওই গৃহবধূকে আটক করে পুলিশ। তবে ঘটনার সঙ্গে জড়িত বাড়িওয়ালা পলাতক থাকায় তাকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে আশুলিয়ার বাইপাইল পূর্বপাড়ার ফিরোজা বেগমের ভাড়া দেয়া বাড়িতে।

অভিযুক্ত আশরাফুল জানান, তিনি ও কানিজ ফাতেমা লিমা আশুলিয়া থানাধীন ডিইপিজেডের একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। শুক্রবার বিকেলে লিমা আশুলিয়ার বুড়িরবাজার এলাকায় বেড়াতে আসে। এ সময় তার সঙ্গে লিমার দেখা হয়। একপর্যায়ে সে লিমাকে তার বাসায় নিয়ে যায়। এ সময় তার স্ত্রী আশা বাড়িতে ছিল না। পরে আশরাফুল লিমাকে ঘরে রেখে দোকানে খাবার কিনতে যায়। এরই মধ্যে স্ত্রী আশা বাসায় এসে ঘরের ভেতর লিমাকে দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। কোন কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে লিমাকে মারতে শুরু করে আশা। একপর্যায়ে আশা ওই বাড়ির মালিক ফিরোজা বেগমের সহযোগিতায় লিমার মাথার চুল কেটে, মুখে কালি মেখে, গলায় জুতোর মালা পরিয়ে এলাকায় ঘোরায়।

সাংবাদিকরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে আশা ও ফিরোজা ভয় দেখিয়ে লিমাকে বাসায় পাঠিয়ে দেয়। বিষয়টি থানায় জানানো হলেও পুলিশ প্রথমে লিমার কোন সন্ধান পায়নি। শেষ পর্যন্ত রাত ১১টার দিকে সাংবাদিকরা লিমার সন্ধান পায় এবং পুলিশের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাবিব ক্লিনিকে ভর্তি করে। পরে পুলিশ আশরাফুল ও তার স্ত্রী আশাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। বাড়ির মালিক ফিরোজা বেগম পলাতক রয়েছে।