১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাগেরহাটে সংখ্যালঘুর বাড়ি-মন্দির দখলের চেষ্টা ॥ ভাংচুর লুটপাট

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ শরণখোলার রাজাপুর বাজারের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বসতবাড়ি এবং একটি সার্বজনীন মন্দিরে তা-ব চালিয়ে ভাংচুর ও দখলের চেষ্টা করা হয়েছে। শুক্রবার গভীর রাতে রাজ্জাক ওরফে ডালিম শরীফের নেতৃত্বে ২০-২২ লাঠিয়াল বাড়ির আসবাবপত্র, প্রার্থনা মন্দির ও দেবদেবীর ছবি ভেঙ্গে ঘরের বাইরে ফেলে দেয় এবং মালামাল লুটপাট করে। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় এবং তিনজনকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনার পর এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

পুলিশ, মন্দিরের সেবাইত ও এলাকাবাসী জানায়, শুক্রবার রাত ১২টায় ডালিমের নেতৃত্বে লাঠিয়াল বাহিনী রাজাপুর বাজারের শ্রীশ্রী গোবিন্দ মন্দিরের সেবাইত দ্বীজেন্দ্র নাথ হাওলাদারের বসতঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে। এ সময় গৃহকর্তা দ্বীজেন ভয়ে পালিয়ে গেলে দুর্বৃত্তরা ঘরের আসবাবপত্র, টেলিভিশন, প্রার্থনা মন্দির ও দেবদেবীর ছবি ভাংচুর করে ঘরের বাইরে ফেলে দেয় এবং নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে বাড়িটি দখল করে নেয়। পরে গোবিন্দ মন্দিরের তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে সেখানে থাকা দানের টাকা লুট করে মন্দিরটি দখল করে। খবর পেয়ে শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম দ্রুত ঘটনাস্থলে যান। এ সময় ডালিমের ভাই সলেমান শরীফ, বোন সুমি ও মা নুরজাহান বেগমকে পুলিশ গ্রেফতার করে। মন্দিরের সেবাইত দ্বীজেন্দ্র নাথ জানান, মন্দির ও তার বাড়িতে দুই একর সাড়ে ১৩ শতক জমি রয়েছে। এ মন্দির ও বাড়ি দখলের উদ্দেশ্যে ভূমিদস্যু ডালিম শরীফ গংরা জাল দলিল বানিয়ে আত্মসাত করতে দীর্ঘদিন ধরে ষড়যন্ত্র করে আসছে। এর আগেও তারা মন্দিরসহ বাড়ি দখলের চেষ্টা করে। কিন্তু প্রশাসনের হস্তক্ষেপে তা ব্যর্থ হয়।

ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলাম পিঞ্জু জানান, ডালিমের নেতৃত্বে মন্দির ও তার সেবাইতের বসতবাড়ি দখলের ঘটনাটি সত্য। যা তাৎক্ষণিকভাবে থানা পুলিশকে তিনি অবহিত করেন। এ বিষয়ে ডালিম শরীফকে জিজ্ঞাসা করা হলে মন্দির, বাড়ি দখল ও লুটপাটের বিষয়টি অস্বীকার করেন এবং ওই জমির মালিক বলে তিনি দাবি করেন।

ওসি রেজাউল করিম জানান, এ ঘটনায় দখল করা ওই বাড়ি থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে ৫৪ ধারায় চালান এবং ঘটনাস্থলে সার্বক্ষণিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া, লুট করা আটটি দলিলের মধ্যে পাঁচটি উদ্ধার করা হয়েছে।