২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশের লক্ষ্য আজ ফাইনাল

  • সেমিফাইনালে স্বাগতিকদের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান, সাফ অনুর্ধ-১৬ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের অপর সেমিতে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতের মুখোমুখি নেপাল

রুমেল খান ॥ দুই দলের মধ্যে একটি মিল আছে। সেটা হলো কোন দলই এর আগে এই আসরের ফাইনালে উঠতে পারেনি। কাজেই উভয় দলের লক্ষ্যই এক এবং অভিন্ন- প্রথমবারের মতো ফাইনালে নাম লেখানো। সাফ অনুর্ধ-১৬ ফুটবল টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালে আজ স্বাগতিক বাংলাদেশের কিশোর দলের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান কিশোর দল। বিকেল তিনটায় সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে দল দুটি। ফাইনালে খেলার পাশাপাশি আফগান দলের আরেকটি লক্ষ্যও আছে। সেটা হলো প্রতিশোধ নেয়া। ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আসরে ৩০ জুলাই নেপালের কাঠমান্ডুর আর্মি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আফগান দল ০-১ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশের কাছে। ওই ম্যাচ জিতে সাত দলের মধ্যে তৃতীয় হয়েছিল ‘বেঙ্গল টাইগার্স’খ্যাত বাংলাদেশ এবং চতুর্থ হয়েছিল ‘দ্য লায়ন্স অব খোরাসান’খ্যাত আফগানিস্তান। রবিবার একই ভেন্যুতে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দ্বিতীয় সেমিতে এক অপরের মোকাবেলা করবে গত আসরের শিরোপাধারী ভারত বনাম নেপাল।

এই টুর্নামেন্টটি এবারই প্রথম অনুষ্ঠিত হচ্ছে বাংলাদেশে। নিজেদের মাটিতে ভাল করার লক্ষ্যে ট্যালেন্ট হান্ট করে গড়া বাংলাদেশ দলটি যে ভাল কিছু করতে পারবে এমনটা আগেই প্রত্যাশা করেছিলেন বাদল রায়, হাসানুজ্জামান খান বাবলুর মতো বাংলাদেশের সাবেক তারকা ফুটবলাররা। এবারের আসরে গ্রুপপর্বে বাংলাদেশ হারায় শ্রীলঙ্কাকে ৪-০ এবং ভারতকে ২-১ গোলে হারিয়ে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়। টানা দুই জয়ে আত্মবিশ্বাস এখন তুঙ্গে জিলানীর কিশোর শিষ্যদের। এখন সেমির প্রতিপক্ষ আফগানদের বধ করতে পারলেই পৌঁছানো যাবে স্বপ্নের ফাইনালে। ২০১৩ সালের সেই আফগান সিংহদের হারানোর স্মৃতি নিঃসন্দেহে দারুণভাবে ‘টনিক’ হিসেবে কাজ করবে বাংলাদেশের জন্য। তাছাড়া নিজেদের চেনা পরিবেশ, আবহাওয়া, মাঠ ও পরিপূর্ণ দর্শক সমর্থনও বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাবে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের।

বাংলাদেশ দলের কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন। সেই সঙ্গে সিলেটের দর্শকদের অনুরোধ জানিয়েছেন আগের মতোই মাঠে এসে বাংলাদেশকে সমর্থন জানাতে। জয় পেতে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক শাওন হোসেন, ‘যেহেতু আমরা এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হতে চাই, তাই আগামীকাল (রবিবার) সেমিফাইনালে আমাদের জিততেই হবে। কোন দলকেই ভয় পাচ্ছি না। আমরা লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত আছি।’

আফগান কোচ হামিদুল্লাহ মাসুদিও সমীহই করছেন বাংলাদেশ দলকে, ‘কোন সন্দেহ নেই, বাংলাদেশ ভাল দল। তারা নিজেদের পরিচিত পরিবেশে খেলছে তাই তারাই এগিয়ে।’ এ আসরে আফগানিস্তান গ্রুপ ম্যাচে মালদ্বীপকে ৪-২ গোলে হারিয়ে শুভসূচনা করলেও পরের ম্যাচে নেপালের কাছে ০-১ গোলে হেরে ‘বি’ গ্রুপের রানার্সআপ হয়। উল্লেখ, এই টুর্নামেন্টের নিয়ম হচ্ছে গ্রুপপর্বের খেলা শেষে সরাসরি সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। কোন কোয়ার্টার ফাইনালেরর ম্যাচ হবে না। টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ১৮ আগস্ট।

২০১১ সালে নেপালের কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল এ টুর্নামেন্টের প্রথম আসর। সে আসরে ৬ দলের মধ্যে চতুর্থ হয়েছিল বাংলাদেশ। পরের আসরেও স্বাগতিক ছিল নেপাল। সেবার সাত দলের মধ্যে তৃতীয় হয়েছিল বাংলাদেশের কিশোররা।

এখন দেখার বিষয়, এবারের আসরে প্রথমবারের মতো কাক্সিক্ষত ফাইনালে উন্নীত হতে পারে কি-না স্বাগতিক বাংলাদেশ দল।