২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এমডিজির সাফল্যে জাতিসংঘে গুরুত্ব বেড়েছে বাংলাদেশের

  • এসডিজিতেও মডেল হিসেবে তুলে ধরতে চায় বাংলাদেশকে

তপন বিশ্বাস ॥ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) অর্জনে বাংলাদেশের সফলতা আসন্ন জাতিসংঘ সম্মেলনে মডেল হিসেবে তুলে ধরা হবে। ১৫ বছরব্যাপী নতুন এই টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) গ্রহণের ক্ষেত্রে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে মডেল হিসেবে সামনে নিয়ে আসতে পারে। যাতে উন্নয়শীল দেশগুলো এই মডেল অনুসরণ করে এসডিজি অর্জনে সফল হতে পারে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানায়।

সূত্র জানায়, দারিদ্র্য বিমোচন, খাদ্য নিরাপত্তা, সকল শিশুর জন্য সমান শিক্ষা, সমুদ্র সম্পদ উন্নয়ন ইত্যাদি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি) কর্মসূচীতে যোগ দেবে বাংলাদেশ। বিশ্বের ১৯৩টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশও এই নতুন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করবে। ২০১৬ থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত ১৫ বছর মেয়াদী এই কর্মসূচী বাস্তবায়ন করবে জাতিসংঘ। আগামী মাসে নিউইয়র্কে এসডিজি শীর্ষ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন এই কর্মসূচী বাস্তবায়ন শুরু হবে। জাতিসংঘের এমডিজি কর্মসূচী সফলভাবে বাস্তবায়নের পর এসডিজি কর্মসূচীও বাস্তবায়নে রোল মডেল হতে চায় বাংলাদেশ।

সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) কর্মসূচীর মেয়াদ চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে শেষ হচ্ছে। এই কর্মসূচীর পর এখন বিশ্বজুড়ে নতুন কর্মসূচী আসছে। এমডিজিতে অনেক দেশ অন্তর্ভুক্তও না হলেও এসডিজি বাস্তবায়নে বিশ্বের ১৯৩টি দেশ এই কর্মসূচী বাস্তবায়ন করবে। এটিই হবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় কর্মসূচী। এর আগে বিশ্বের এতগুলো দেশে একযোগে কোন কর্মসূচী বাস্তবায়ন হয়নি। এসডিজির মাধ্যমেই বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বড় কর্মসূচী বাস্তবায়িত হবে। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচী জানিয়েছে, এসডিজি কর্মসূচীতে ১৭টি প্রধান লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে রয়েছে। সকল দেশ থেকে দারিদ্র্য বিলোপ। ক্ষুধা নিবারণ, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, পুষ্টি উন্নয়ন ও টেকসই কৃষিব্যবস্থা উন্নয়ন। সকলের জন্য সুস্থ জীবন নিশ্চিত করা। সকল শিশুর জন্য সমান শিক্ষা ও সকলের জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করা। নারীর সমান অধিকার ও ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা। পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন নিশ্চিত করার জন্য টেকসই ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন। বিদ্যুত ও জ্বালানি ব্যবস্থাপনার টেকসই উন্নয়ন। শিল্প ব্যবস্থাপনার টেকসই উন্নয়ন। সমুদ্র সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন ইত্যাদি।

বিশ্বজুড়ে এসডিজি কর্মসূচী নেয়ার লক্ষ্যে গত তিন বছর ধরে জাতিসংঘ কাজ করছে। ১৫ বছর মেয়াদী এই কর্মসূচীতে কি কি বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকবে, সে বিষয়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে এই কর্মসূচী চূড়ান্ত করেছে জাতিসংঘ। এই কর্মসূচী নেয়ার জন্য প্রায় একশ’টি দেশে জাতীয় পরামর্শ সভা হয়েছে। এসব পরামর্শ সভা থেকে এই কর্মসূচী চূড়ান্ত করা হয়। এসডিজির প্রধান লক্ষ্যমাত্রা ১৭টি হলেও আরও ১৬৯টি সহযোগী লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এসব লক্ষ্যমাত্রা উন্নয়নে একযোগে কাজ করবে বাংলাদেশ। জাতিসংঘের ১৯৩টি দেশের সবগুলো সদস্য দেশই এসডিজির লক্ষ্যমাত্রার বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে। আগামী ২৫ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে এসডিজি শীর্ষ সম্মেলন হবে। এই সম্মেলনে যোগ দেবে বাংলাদেশ। সেখানেই এসডিজি কর্মসূচীর আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দেয়া হবে।