১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভাল খেলতে টাইগারদের মনোবল অটুট

  • মাহমুদুল্লাহর আরও দাবি যে কোন পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম অস্ট্রেলিয়া, অনুশীলনে ফিরেছেন দুই ফরমেটের অধিনায়ক মাশরাফি-মুশফিক

স্পোার্টস রিপোর্টার ॥ টানা তিন সিরিজ শেষ করার পর ক্রিকেটাররা আছেন ছুটিতে। তবে দ্রুতই ফুরিয়ে আসছে বিশ্রাম নেয়ার সময়টা। আগামী শনিবার থেকেই জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। তবে এর আগেই ওয়ানডে ও টেস্ট অধিনায়ক অনুশীলনে ফিরেছেন। ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ও টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম বিশ্রামের জড়তা কাটিয়ে ওঠার জন্য ছুটির পর প্রথমবার হালকা অনুশীলনে নামেন। এছাড়াও এদিন পরে নেটে মুশফিকের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। মূলত অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আগামী অক্টোবরে পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য শনিবার থেকে ক্যাম্প শুরু করবে জাতীয় দল। আর সোমবার স্বেচ্ছায় অনুশীলনে ফেরার পর মাহমুদুল্লাহ জানান ধারাবাহিকতা রাখাই হবে বড় চ্যালেঞ্জ। এবার ইংল্যান্ড সফরে অস্ট্রেলিয়া দলের ভরাডুবি হয়েছে। এরপরই বাংলাদেশ সফর, কিন্তু খুব বাজে পরিস্থিতি থেকেও ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম অস্ট্রেলিয়া এমনটাই মনে করেন মাহমুদুল্লাহ।

মর্যাদার এ্যাশেজ সিরিজে এবার নাকানি-চুবানি খেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। একটি টেস্ট বাকি থাকতেই ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। এরচেয়ে বড় কথা সিরিজে চরম ব্যর্থতা দেখিয়ে যাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা। টানা দুই টেস্টে ব্যাটিংয়ের ছিল বেহাল দশা। এমনকি ক্রিকেটের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বলে অলআউট হওয়ার মতো লজ্জাও বরণ করেছে অসিরা। আর এমন দুর্গতি দেখে অবসরই নিয়ে ফেলেছেন অসি অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক। ইংল্যান্ড সফর শেষেই অস্ট্রেলিয়ার পরবর্তী চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশ সফর। আর সেখানে কিন্তু এখন যে পরিস্থিতির মধ্যেই থাকুক না কেন, অসিদের যে কোন মুহূর্তে ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্য আছে। এমনটাই দাবি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। তিনি বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া এমন একটি দল যাদের ঘুরে দাঁড়াতে একটুও সময় লাগবে না। যে কোন পরিস্থিতি থেকে তারা আবার ভাল করতে সক্ষম।’

বর্তমানে বাংলাদেশ দল দারুণ ফর্মে আছে। বিশেষ করে ঘরের মাটিতে দারুণ গেছে গত কয়েকটি সিরিজ। গত বছর ডিসেম্বর থেকেই ভাল সময় যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেটে। জিম্বাবুইয়েকে হারানোর পর বিশ্বকাপেও দারুণ খেলেছে টাইগাররা। এরপরই পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টানা তিন সিরিজে দারুণ ক্রিকেট উপহার দিয়েছে। টানা ৮ মাস খুব কম বিশ্রামই পেয়েছেন ক্রিকেটাররা। খেলার মধ্যেই ছিলেন। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ শেষে বড় একটা বিরতি পেয়েছেন সবাই। ক্রিকেটাররা যার যার মতো করে দেশের বাড়িতে কিংবা বিদেশে কাটিয়েছেন। এখনও ছুটি শেষ হয়নি। তবে ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছেন ক্রিকেটাররা। সম্প্রতি সিঙ্গাপুর থেকে পরিবার নিয়ে ছুটি কাটিয়ে এসেছেন মাহামুদুল্লাহ। দীর্ঘদিনের বিরতি থাকায় নিজেকে ঝালিয়ে নিতে সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ইনডোরে উপস্থিত হন তিনি। সেখানে নেটে বেশ কিছুক্ষণ অনুশীলন করেন টাইগারদের মিডলঅর্ডারের নির্ভরযোগ্য এ ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশ টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকও নেটে অনুশীলন করেন। এর আগেই অবশ্য ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফির সঙ্গে মিরপুর স্টেডিয়ামের মূল ভেন্যুতে বেশ কিছুক্ষণ রানিং ও শারীরিক কসরত করেছেন মুশফিক-মাশরাফি। পরে মাশরাফি চলে গেলেও নেটে সময় কাটিয়েছেন মুশফিক।

অনুশীলনের ফাঁকে মাহমুদুল্লাহ আরও বলেন, ‘ছুটিটা বেশ উপভোগ করেছি। দুই সপ্তাহ বেশ ভাল কেটেছে। ক্রিকেটারদের জন্য ধারাবাহিকতা ধরে রাখা এখন বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের সবারই দায়িত্ব বেড়ে গেছে। সকলের বড় দায়িত্ব হলো নিজেদের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। তবে, আমরা আত্মবিশ্বাসী অসিদের বিপক্ষে ভাল করতে পারব। বিগত সিরিজগুলো থেকেই আমরা আত্মবিশ্বাস অর্জন করেছি।’ অস্ট্রেলিয়া দল আসার আগে দীর্ঘ প্রায় দেড় মাস বিরতি পাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। এ সময়ের মধ্যে ভাল প্রস্তুতির জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) চিন্তা করছে লঙ্গার ভার্সন প্রথমশ্রেণীর ক্রিকেট আসর বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগ (বিসিএল) আয়োজন করতে। প্রস্তুতি ম্যাচ খেলানোরও চিন্তাভাবনা আছে। এসব হলে তা ক্রিকেটারদের ছন্দ ধরে রাখার জন্য বেশ সুবিধাজনক ব্যাপারই হবে বলে মনে করেন মাহমুদুল্লাহ। মাত্র দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় পা রাখবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।