২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চুং মংয়ের এক হাত ব্লাটারকে!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ অবশেষে ফিফা সভাপতি পদে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার ধনকুবের চুং মং-জুন। বিদায়ী সভাপতি সেফ ব্লাটারের সমালোচনার মধ্য দিয়েই সোমবার নিজের প্রচার শুরু করেন তিনি। চার বছরের জন্য নির্বাচিত হলে ফিফাকে সব ধরনের কলঙ্ক মুক্ত করা হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন চুং মং জুন। এ বিষয়ে ৬৩ বছর বয়সী চুং মং প্যারিসের এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বর্তমানে ফিফা গভীর সঙ্কটের মধ্যে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ফিফা সভাপতিকে সমস্যা সমাধান এবং এর সংস্কারে মনোযোগী হতে হবে। ফিফার প্রধান সমস্যা দুর্নীতি হলেও এর কর্ণধাররা ওই দুর্নীতিকে ধামা-চাপা দেয়ার দিকেই বেশি আগ্রহী। ফিফা দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হওয়ার প্রধান কারণ হচ্ছে কিছু কিছু ব্যক্তির (ব্লাটার) ৪০ বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটির ক্ষমতাকে আঁকড়ে ধরার প্রবণতা। প্রকৃতপক্ষে অসীম ক্ষমতাই সীমাহীন দুর্নীতির জন্ম দেয়।’

গত মে মাসে জুরিখের এক হোটেল থেকে দুর্নীতির দায়ে ৭ ফিফার শীর্ষ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করে দেশটির পুলিশ। এরপর থেকেই বিশ্বব্যাপী ঝড় ওঠে। যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত ১০ মিলিয়নেরও বেশি অর্থ কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠা ফিফার ১৪ কর্মকর্তার তালিকায় ছিলেন গ্রেফতারকৃত ওই ৭ কর্মকর্তা। অবশ্য ব্লাটারের বিপক্ষে দুর্নীতির অভিযোগে কোন মামলা হয়নি। চুং মনে করেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে আসন্ন নির্বাচনে তিনি যদি সভাপতি নির্বাচিত হন তাহলে ওই মেয়াদের পর তিনি আর ওই পদে নির্বাচন করবেন না। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘চার বছরের মধ্যেই আমি ফিফাকে পরিবর্তন করতে পারব। বিশ্বের ফুটবল অনুরাগীদের কাছে এটিই আমার প্রতিজ্ঞা। যুগের পর যুগ ধরে দুর্নীতি চক্রের শাসনের পর ফিফার এমন একজন নেতা দরকার যিনি সৃষ্টাচার, স্বচ্ছতা এবং দায়-দেনা মেঠাতে সক্ষম।’

আসন্ন ফিফা নির্বাচনে সভাপতি হিসেবে প্রার্থিতা ঘোষণা করেছেন উয়েফা সভাপতি মিশেল প্লাতিনি, ব্রাজিলের ফুটবল কিংবদন্তি জিকো এবং লাইবেরিয়ার ফুটবল প্রধান মুসা বিলিটি। সাবেক ফিফা সহ-সভাপতি জর্দানের প্রিন্স আলী বিন আল হুসেনও ফিফা সভাপতি প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছেন। আগামী বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারিতে হতে যাওয়া এই নির্বাচনে প্লাতিনিকেই জোরালো প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করছেন ফুটবলবোদ্ধারা। ইতোমধ্যে তিনি জাতীয় ও আঞ্চলিক ফেডারেশনসহ জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন লাভ করেছেন। তবে চুং মনে করেন, ফ্রান্সের এই নাগরিকের প্রার্থী হওয়া উচিত হবে না। কারণ তিনি ব্লাটারের মিত্র। শুধু তাই নয়, ফিফার এই কর্মকা-ের সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠভাবে জড়িতও ছিলেন উয়েফার সভাপতি প্লাতিনি।

তাই চুং বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি মিশেলের (প্লাতিনি) জন্য সুবিধাজনক নয়। আমার মনে হয় নির্বাচনে না দাঁড়ানোই তার জন্য উচিত হবে। এক সময় ব্লাটার ও প্লাতিনিকে ‘পিতা-পুত্রের’ মতো সম্পর্কিত বলে উল্লেখ করা হতো। তবে এখন ফ্রান্সের এই সংগঠক ফিফা নেতার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।’ হ্যাঁ, মিশেল প্লাতিনি এবার কঠোর বিরোধিতা করছেন ব্লাটারের। দুইদিন আগে সাবেক সভাপতিকে জেল খাটানোরও হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক সভাপতি ব্লাটার। যদিওবা এই সবকে অস্বীকার করেছেন উয়েফার সভাপতি প্লাতিনি। তবে দক্ষিণ কোরিয়ার ফুটবল সংগঠক চুং মং মনে করছেন, ফিফায় এককভাবে রাজত্ব করছে ইউরোপ আর লাতিন আমেরিকা। যে কারণে ইউরোপ থেকে ফিফা সভাপতির পদটি দূরে নিয়ে যাওয়ার জন্য এটিই হচ্ছে উপযুক্ত সময়। এ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব পালন করা সব কর্মকর্তাই ইউরোপ কিংবা ব্রাজিলের নাগরিক ছিলেন।