২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তিনদিনের রিমান্ডে সাংবাদিক প্রবীর সিকদার

তিনদিনের রিমান্ডে সাংবাদিক প্রবীর সিকদার

অনলাইন ডেস্ক ॥ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে (আইসিটি) ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানায় দায়ের করা মামলায় সাংবাদিক প্রবীর সিকদারের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১নং আমলি আদালতের বিচারক হামিদুল ইসলাম। প্রবীর সিকদারকে দশদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছিল পুলিশ।

বেলা সাড়ে এগারটার পর ফরিদপুর জেলা কারাগার থেকে এনে প্রবীর সিকদারকে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজেএম) আদালতে হাজির করা হয়।

শুনানিতে রিমান্ড আবেদনের পক্ষে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট অনিমেষ রায়, অ্যাডভোকেট জাহিদ বেপারী, কোর্ট পরিদর্শক সুবির দে প্রমুখ।

অন্যদিকে সাংবাদিক প্রবীর সিকদারের পক্ষে তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আলী আশরাফ নান্নু ও অ্যাডভোকেট মাসুদ রানা জামিনের আবেদন জানান। তারা রিমান্ড নামঞ্জুর করে প্রয়োজনে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদেরও আবেদন জানান। প্রবীর সিকদার নিজেও আদালতে বক্তব্য দিয়ে শুনানিতে অংশ নেন।

আসামিপক্ষের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

আদালতকক্ষে উপস্থিত ছিলেন প্রবীর সিকদারের স্ত্রী অনিতা সিকদার ও ছোট ছেলে পুলক সিকদার।

এর আগে সোমবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। সে সময় তাকে দশদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানান মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিরাজুর রহমান। সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১নং আমলি আদালতের বিচারক হামিদুল ইসলাম প্রবীর সিকদারকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়ে মঙ্গলবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেন।

রবিবার (১৬ আগস্ট) রাতে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে ফরিদপুরে নিয়ে যাওয়ার পর প্রবীরকে কোতোয়ালি থানায় রাখা হয়েছিল। সোমবার সন্ধ্যা পৌনে ছয়টায় থানা থেকে আদালতে হাজির করে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, প্রবীর শিকদার জনকণ্ঠের ফরিদপুর প্রতিনিধি থাকাকালে ‘সেই রাজাকার’ শিরোনামে একটি ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। সেই প্রতিবেদেন বিশেষ কিছু ব্যাক্তির মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার বিষয়ে লেখেন তিনি।

ওই সময় (২০০১ সালে দৈনিক জনকণ্ঠের ফরিদপুর প্রতিনিধি থাকাকালে) সন্ত্রাসীদের হামলায় মারাত্মক আহত হন প্রবীর শিকদার। এ ঘটনায় চিকিৎসকেরা প্রবীর শিকদারের একটি পা কেটে ফেলেন। তখন থেকেই প্রবীর শিকদার অভিযোগ করে আসছিলেন ওই ধারাবাহিক প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর ওপর হামলা করা হয়।

এরপর দেশে বিদেশে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে সমকালে যোগ দেন তিনি। তারপর দৈনিক কালেরকন্ঠে তিনি যোগ দেন। বর্তমানে তিনি অনলাইন পোর্টাল ‘উত্তরাধিকার ৭১ নিউজ’ এবং ‘দৈনিক বাংলা ৭১’ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক।