২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের সার্ভিস চার্জ অনেক বেশি ॥ অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, দারিদ্র দূর করতে গ্রামে আরো বেশি অর্থনীতির বিস্তার ঘটাতে হবে। সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো অর্থ সংগ্রহ করা। এটা খুব কঠিন কাজ। মঙ্গলবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ইনস্টিটিউট অব মাইক্রোফিন্যান্স (আইএনএম)‘র দুইদিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলনের শেষ দিনের তৃতীয় সেশনে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে অনেক অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের বিস্তার ঘটেছে। তবে দারিদ্র দূর করতে গ্রামে আরো বিস্তার ঘটাতে হবে। এদেশে এখনো অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের সার্ভিস চার্জ অনেক বেশি। যা নিন্ম আয়ের মানুষের বহন করা কঠিন। এ সার্ভিস চার্জ দিয়ে মুনাফা করা কঠিন। ক্ষুদ্র আর্থিক প্রাতিষ্ঠান সম্পর্কে তিনি বলেন, সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো অর্থ সংগ্রহ করা। এটা খুব কঠিন কাজ। দেশে ব্যাংক ছাড়াও বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান আছে। তাদের কাছে বেশ উদ্ভাবনী শক্তি রয়েছে। এই উদ্ভাবনী প্রতিষ্ঠানগুলোকে একটা নিয়মের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। তাহলে আরো কার্যকরভাবে উন্নয়ন করা সম্ভব হবে। তিনি আরো বলেন, দেশে ২০ শতাংশ লোক ছাড়া সকলকেই কোন না কোনভাবে অর্থনৈতিক সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে বলেও জানান তিনি। তৃতীয় সেশনে সভাপতিত্ত্ব করেন ইনস্টিটিউট অব মাইক্রো ফিন্যান্স-এর চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জমান আহমদ। সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইনস্টিটিউট অব মাইক্রো ফিন্যান্স-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর প্রফেসর এম এ বাকী খলিলী। এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের ৮৮ ভাগ পরিবার ইনফরমাল ফিন্যান্সিয়াল মার্কেটে রয়েছে। ফলে এদিক দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার শীর্ষে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। তিনি বলেন, দারিদ্রতা দূর করতে হলে অংশগ্রহণমুলক অর্থব্যবস্থার দিকে নজর দিতে হবে। তাহলেই সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

এর আগে দিনের প্রথম সেশনে সভাপতিত্ব করেন পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন- পিকেএসএফ‘র জেনারেল বডির সদস্য এম্বেসেডর মুন্সি ফয়েজ আহমদ। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইনস্টিটিউট অব মাইক্রো ফিন্যান্স (আইএনএম)-এর চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জমান আহমদ। আলোচনায় ড. কাজী খলিকুজ্জমান আহমদ বলেন, দারিদ্রতা নিরসনে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও প্রশিক্ষণের সমানভাবে উন্নয়ন ঘটাতে হবে। মানুষকে ক্ষমতায়নের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে হবে। এ জন্য রাজনৈতিক উন্নয়ন ঘটাতে হবে। কারণ রাজনৈতিক উন্নয়ন ছাড়া মানব উন্নয়ন সম্ভব নয়। উন্নয়ন একটা রাজনৈতিক প্রক্রিয়া। সারা বিশে^ এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই উন্নয়ন হচ্ছে। তিনি বলেন, সমৃদ্ধ টেকসই উন্নয়নের জন্য সততা ও নৈতিকতার বিকাশ ঘটানোর পাশাপাশি সুষ্ঠু মনিটরিং ব্যবস্থা থাকতে হবে। মানুষের সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করতে পারলে দারিদ্রতা হ্রাস করা সম্ভব।