১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাইবার অপরাধ দমনে বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি নিয়ে কেন্দ্রীয় সংস্থা হচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাইবার অপরাধ দমনে বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি নিয়ে কেন্দ্রীয় সংস্থা গঠন করতে যাচ্ছে বিটিআরসি। এই সংস্থা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ সাইবার অপরাধের ওপর নজরদারি জোরদার, অপরাধ তদন্ত ও দোষীদের শনাক্ত করে শাস্তির ব্যবস্থা নেবে। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অচিরেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। মঙ্গলবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হযেছে।

বিটিআরসির ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, সাইবার অপরাধ দমন ও সাইবার নিরাপত্তা বাড়াতে বিটিআরসি আইন প্রয়োগকারী প্রতিষ্ঠান, গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর সঙ্গে আরও নিবিড় যোগাযোগ ও সমন্বয় করে কাজ করার সার্বিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সাইবার অপরাধের ওপর নজরদারি জোরদার, সংঘটিত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের শনাক্ত করবে কেন্দ্রীয় সংস্থা। অপরাধ দমন দেশের সংশ্লিষ্ট সব সংস্থা ও দফতরের সমন্বয়ে এই কেন্দ্রীয় সংস্থা গঠনের প্রস্তাব তৈরি করেছে বিটিআরসি। এই প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। সেখান থেকে অনুমোদন পাওয়া গেলেই কেন্দ্রীয় সংস্থা গঠন চূড়ান্ত করা হবে। এছাড়া বিটিআরসি বিদ্যমান সামর্থ ও সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সাইবার অপরাধীদের শনাক্তকরণসহ পুলিশের তদন্ত কাজে সহায়তার জন্য কারিগরি ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করার পদক্ষেপ নেয়া হযেছে।

বিটিআরসির পাশাপাশি সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পর্কিত বিভিন্ন দফতর এবং নিরাপত্তা ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো নিজস্ব অধিক্ষেত্র অনুসারে সাইবার অপরাধ প্রতিরোধে কাজ করে আসছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান হয়, সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে দেশের পুলিশসহ আইন প্রয়োগকারী ও বিভিন্ন নিরাপত্তা সংস্থার সঙ্গে বিটিআরসির কর্মকর্তাদের সম্প্রতি একাধিক ফলপ্রসূ বৈঠক হয়েছে। সাইবার অপরাধ দমনে বিটিআরসির পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। ভবিষ্যতে সাইবার অপরাধ দমনে আরও উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বাক, চিন্তা ও যোগাযোগের স্বাধীনতা সমুন্নত রাখার পাশাপাশি সুস্থ ও সাবলীল সামাজিক মাধ্যম গঠনে বিটিআরসি সহায়ক ভূমিকা পালন করে আসছে। এ জন্য সোশ্যাল মিডিয়াসহ সাইবার অপরাধ দমনে বিদ্যমান জনবল ও কারিগরি সক্ষমতা দিয়ে বিটিআরসি সাধারণ নাগরিক ও বিভিন্ন চাহিদামতো সহযোগিতা প্রদান করে আসছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান হয়েছে, ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বিটিআরসি নিয়ন্ত্রণ করে না উল্লেখ করেছে বিটিআরসি। এ সব মাধ্যমের সঙ্গে বিটিআরসি বা অন্য কোন সংস্থার কোন ধরনের সমঝোতা স্মারক বা চুক্তি না থাকলেও তাদের নিজস্ব নিয়মকানুন অনুসারে জনস্বার্থে প্রয়োজনমতো বিটিআরসি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছে।