২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভোলায় বঙ্গবন্ধুর খুনী মাজেদের বাড়ি ও সম্পত্তি ক্রোক

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভোলা, ১৮ আগস্ট ॥ অবশেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার ৪০ বছর পর হত্যা মামলার অন্যতম আত্মস্বীকৃত খুনী ক্যাপ্টেন মাজেদুল ইসলাম মাজেদের ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার বাড়িঘর, জমি, দোকানপাটসহ সকল সম্পত্তি মঙ্গলবার দুপুরে ক্রোক করে দখলে নিয়েছে জেলা প্রশাসন। ক্রোকের ঘটনায় এলাকায় উৎসুক জনতা ভিড় জমায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বোরহানউদ্দিন উপজেলার এসি ল্যান্ড মনোয়ার হোসেন ও ওসি রতন কৃষ্ণ রায় চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি টিম সরকারের পক্ষে বোরহানউদ্দিন হাসপাতাল রোডে কুতুবা মৌজায় মাজেদের নামে ৬৭ শতাংশ ও ভিপি জমি মার্কেটসহ ১ একর ৩৫ শতাংশ জমিতে প্রথমে সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে দেন এবং এ জমিতে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেন। এর পর থেকে দোকানদাররা তড়িঘড়ি করে তাদের মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে। এছাড়া তার গ্রামের বাড়ি বড়মানিকা ইউনিয়নের বাটামারা ৫নং ওয়ার্ডে বাগান, বাড়িসহ প্রায় ৩ একর ১৬ শতাংশ জমি সরকার বাজেয়াফত করে লাল নিশান উড়িয়ে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেন। ক্যাপ্টেন মাজেদ কানাডায় পালিয়ে থাকলেও তার জমিতে বসবাসকারী তার ভাইয়ের পরিবার-পরিজন ও ভাড়াটে ব্যবসায়ীদের বাড়ি ও দোকান ছাড়ার নোটিস দেয়া হয়েছে। এছাড়া আরও কোন সম্মতি রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে প্রশাসন। জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম রেজা জানান, এ সম্পত্তি ক্রোক করে সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার জন্য নির্দেশনা ছিল। এর আগে কাগজপত্রে এ সম্পত্তি সরকারী বলে জানানো হলেও মঙ্গলবার দুপুরে নিশানা টানিয়ে সকল সম্পত্তি সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।

প্রতিবাদ

গত ১৭ আগস্ট দৈনিক জনকণ্ঠ ‘আনসার নিয়োগে ভুয়া কাগজ তৈরির অভিযোগ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সীতাকু- থানা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা খুরশিদ আলম। তিনি দাবি করেন, তার নিয়ন্ত্রিত সংস্থায় আনসার সংখ্যা ৩৭০। তার এলাকায় আলী আকবর ও দেলোয়ার হোসেন নামের কোন পিসি নেই। নেই ভুয়া কাগজধারী কোন আনসার সদস্য। প্রকাশিত সংবাদে ৫শ’ ভুয়া আনসার নিয়োগের যে তথ্য দেয়া হয়েছে তা সঠিক নয়। সংবাদের স্মাট কার্ডের যে তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে তা নিয়মের কোন ব্যত্যয় নেই।