২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাজান থেকে রিও’র বার্তা

  • যুক্তরাষ্ট্রের শ্রেষ্ঠত্বে শেষ বিশ্ব সাঁতার;###;মোঃ মামুন রশীদ

শেষ হয়ে গেল এবারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপস সাঁতার। রাশিয়ার কাজানে অনুষ্ঠিত এবারের আসর জমজমাট ছিল প্রতিযোগিদের দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্য দিয়ে। অংশগ্রহণকারী সাঁতারুদের জন্য সবচেয়ে বড় অভ্যেসটা হয়ে গেছে রাতে জেগে থাকার। কারণ আগামী বছর ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে অনুষ্ঠিত হবে পরবর্তী অলিম্পিক। বিশ্বের যে কোন স্থানের চেয়ে সম্পূর্ণই ব্যতিক্রম সময়সূচী সেখানে। অন্য মহাদেশগুলোর সঙ্গে বিশাল বৈপরীত্য সময়ের। সেটা মাথায় রেখে এবার অলিম্পিকের ইতিহাসে এতদিন যে সময়সূচী ছিল সেখানে পরিবর্তন থাকছে। রিও অলিম্পিকে সব ইভেন্টের পদকের নিষ্পত্তি হতে হতে মাঝ রাত পেরিয়ে যাবে। সেসব বিবেচনায় রেখেই এবার বিশ্ব সাঁতারেও সময়সূচী করা হয়েছে। সে কারণে কাজানে ভাল প্রস্তুতি হয়েছে সব দেশের সাঁতারুদের। এবারের প্রতিযোগিতা শেষে বরাবরের মতোই শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাঁতারুরা। তারা জিতেছে ২৩ পদক। দ্বিতীয় স্থানে তাদের চিরাচরিত চরম প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া জিততে পেরেছে ১৬ পদক। ১৩ পদক নিয়ে তৃতীয় চীন।

রিও ডি জেনিরো অলিম্পিক এবার বিশ্বের অন্য সাঁতারুদের যেভাবেই হোক সেখানকার অবস্থা সম্পর্কে বুঝে উঠতে বাধ্য করেছে। আগেভাগে ব্রাজিলের সময়ের সঙ্গে মানিয়ে ওঠার অনুশীলন তাই কাজানের বিশ্ব আসরেই সেরে ফেলেছেন সব দেশের সাঁতারুরা। অবশেষে সেই প্রস্তুতিটাও শেষ হয়ে গেল। যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে এবারও। তবে স্বাভাবিক নিয়মেই যেন আবার শ্রেষ্ঠত্ব অধিকার করল যুক্তরাষ্ট্র। ১৩ পদক নিয়ে চীনের সাঁতারুরা তৃতীয় এবং ব্রিটিশ সাঁতারুরা ৯ পদক জিতে চতুর্থ স্থান নিয়ে শেষ করেছে। তবে এখন কাজানকে ভুলে যেতে হবে, তাকাতে হবে সামনের দিকে। আগামীতে যেসব প্রতিযোগিতা আসছে সেখানে কাজানের সাফল্য ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ এখন পদকজয়ী সাঁতারুদের। এ কারণে কোচরাও চাইছেন শুধু এখান থেকে অনুপ্রেরণাটা নিয়ে আগামী প্রতিযোগিতাগুলোয় মনোনিবেশ করতে। এখন থেকেই মূল লক্ষ্য হিসেবে সাঁতারুরা ও কোচরা রিও অলিম্পিক নিয়ে ভাবছেন।

এখন পর্যন্ত ঐতিহাসিকভাবে এবং প্রথাগতভাবে অলিম্পিকে সবসময় সকালের সেশনে হিট এবং সন্ধ্যায় ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে মার্কিন সম্প্রচার সংস্থাগুলোর সুবিধার্থে এবার ব্রাজিলের সময় অনুসারে রাত ১০টায় ফাইনাল এবং দুপুর ১টায় হিটগুলো অনুষ্ঠিত হবে। এর অর্থ অধিকাংশ পদকের ফয়সালাই হবে মাঝরাতের পর। আর পদকজয়ী তারকাদের অলিম্পিক ভিলেজে পৌঁছে নিজের বিছানায় গা এলিয়ে দিতে দিতে প্রায় ভোর হয়ে যাবে। কারণ পদক বিতরণী, সংবাদ সম্মেলন, ডোপিং নিয়ন্ত্রণ পরীক্ষা এবং তারপর অলিম্পিক আয়োজকদের বাসে করে ভিলেজে আসতে হবে। অলিম্পিকের সময়সূচী এবারই প্রথম পরিবর্তন করা হয়নি। ২০০৮ সালে বেজিং অলিম্পিকেও সময়সূচীতে পরিবর্তন আনতে হয়েছিল। সেখানে সন্ধ্যায় হিট এবং সকালে ফাইনাল হয়েছে। এ বিষয়ে এবার ১০০ ও ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে স্বর্ণজয়ী অস্ট্রেলিয়ার মিচেল লারকিন বলেন, ‘ফাইনালের জন্যই সবাই লড়বে এবং সময়টা মাথায় রাখতে হবে। রিওতে এটা আরও বিলম্ব হবে। কিন্ত এটা একজন এ্যাথলেটের ক্যারিয়ারের অবিচ্ছেদ্য অংশ। আমরা যেটা করতে পারি তা হচ্ছে প্রস্তুতি নেয়া।’ এসব বিষয় মাথায় রেখেই সুইডেন ও জার্মানি গত জানুয়ারিতে রিওতে অনুশীলন ক্যাম্প করেছিল। সব দেশেরই রিও’র জন্য আলাদা পরিকল্পনা আছে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া তাদের অনুশীলন করবে ক্যানবেরায় অবস্থিত ইনস্টিটিউট অব স্পোর্টে। সেখানে ১০ দিনের অনুশীলন শুরু হবে আগামী মাসে।