১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খেলাপি ঋণ কমে আসায় কমছে প্রভিশন ঘাটতি

অর্থিনৈতিক রিপোর্টার ॥ খেলাপি ঋণ কমার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংকগুলোর প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণও কমেছে। চলতি বছরের জুন প্রান্তিক শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি খাতের ৫টি ব্যাংক তিন হাজার ৪৩৭ কোটি টাকার প্রভিশন ঘাটতিতে পড়েছে। এর আগে মার্চ প্রান্তিকে প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৭৭৮ কোটি টাকা। ফলে তিন মাসের ব্যবধানে প্রভিশন ঘাটতি কমেছে ৯২৮ কোটি টাকা। আর এক বছরের ব্যবধানে প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণ কমেছে এক হাজার ৫৩০ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের খেলাপি ঋণ এবং প্রভিশনিং সংক্রান্ত হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের জুন প্রান্তিক শেষে খেলাপি ঋণ কমার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংকগুলোর প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণও কমেছে। আলোচ্য সময়ে খেলাপি ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর ৩০ হাজার ৩৬ কোটি টাকার প্রভিশন রাখার কথা থাকলেও এ সময়ে তারা ২৭ হাজার ৫৬৪ কোটি টাকার প্রভিশন রেখেছে। ফলে সার্বিকভাবে ব্যাংক খাতে প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা। যা এর আগের প্রান্তিক মার্চ শেষে ছিল ৩ হাজার ৭৭৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্চ শেষে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকসহ মোট ৮টি ব্যাংক প্রভিশন ঘাটতির তালিকায় থাকলেও জুন শেষে তা কমে ৫টিতে দাঁড়িয়েছে। প্রভিশন ঘাটতির তালিকা থেকে বের হয়ে এসেছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। আর এ সময়ে নতুন করে যুক্ত হয়েছে সোনালী ব্যাংক ও স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক।