১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মানবিক সঙ্কটে ইউরোপ

গত মাসে রেকর্ডসংখ্যক ১ লাখ ৭ হাজার ৫শ’ অভিবাসী ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সীমান্ত অতিক্রম করে। মঙ্গলবার এ নতুন পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হয়। এতে দেখা যায়, নাটকীয়ভাবে বর্ধিত সংখ্যায় তাদের আগমন ঘটছে এবং ২৮ জাতি জোটের জন্য এক মানবিক সঙ্কটের সৃষ্টি হচ্ছে। খবর এএফপির

ইইউ সীমান্ত সংস্থা ফ্রন্টেক্স জানায় যে, অভিবাসীদের ওই সর্বশেষ সংখ্যা পূর্ববর্তী বছরের জুনের মাসিক রেকর্ড ৭০ হাজারের চেয়ে অনেক বেশি। ফ্রন্টেক্স জানায়, চলতি বছরের প্রথম সাত মাসে প্রায় ৩ লাখ ৪০ হাজার অভিবাসীর আগমন ঘটে। গত বছরের একই সময়ে আগমন ঘটেছিল ১ লাখ ২৩ হাজার ৫শ’ শরণার্থীর।

ফ্রন্টেক্সের ডিরেক্টর ফ্যাব্রাইস লেগারি এক বিবৃতিতে বলেন, এটি ইউরোপের জন্য এক জরুরী পরিস্থিতি। এতে ইইউর সব সদস্য রাষ্ট্রে জাতীয় কর্তৃপক্ষগুলোকে সমর্থন করতে এগিয়ে আসা উচিত। কারণ এসব কর্তৃপক্ষ ইইউর সীমান্তে বিরাটসংখ্যক অভিবাসীদের আশ্রয় দিচ্ছে। চলতি বছর ৭ লাখ ৫০ হাজার শরণার্থী কেবল জার্মান ভূখ-ে আশ্রয় চাইবে বলে বার্লিন মনে করছে। প্রচার মাধ্যমের খবরে এ কথা বলা হয়। জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা কেবল গত সপ্তাহে জানায় যে, ২০ হাজার ৮৪৩ অভিবাসী গ্রীসে পৌঁছেছে। জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ৬০ হাজার অভিবাসী এর উপকূলে আগমন করে। অভিবাসীদের প্রায় সবাই সিরিয়া, আফগানিস্তান ও ইরাকে চলমান লড়াই ও নির্যাতনের হাত থেকে রেহাই পেতে গ্রীসে আশ্রয় নিচ্ছে। জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা একথা জানায়। এদিকে ইতালির পুলিশ আটজন সন্দেহভাজন আদম পাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে বলে জানায়। পাচারকারীরা ভূমধ্যসাগরে মাছ ধরার এক নৌকার খোলে থাকতে অভিবাসীদের বাধ্য করেছিল বলে জানা যায়। তখন তাদের ৪৯ জন ইঞ্জিনের ধোঁয়ায় শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা যায়।

এক সংবাদ সম্মেলনে সিসিলির কাতানিয়ায় প্রসিকিউটর মাইকেল লো এ্যাঞ্জেলো বলেন, কোন কোন পাচারকারীকে অভিবাসীদের মাথায় লাথি মারার দায়ে অভিযুক্ত করা হয়েছে। অভিবাসীরা তখন বাতাসে শ্বাস নেয়া দুঃসাধ্য হয়ে পড়ায় খোল থেকে বেরিয়ে আসতে চেয়েছিল। গত সপ্তাহান্তে মাছ ধরার এক নৌকাতে মৃত অভিবাসীদের প্যাকেটমোড়া অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। নৌকাটি দিয়ে অন্য ৩১২ অভিবাসী উত্তর আফ্রিকা থেকে ইতালি যেতে ভূমধ্যসাগর পার হওয়ার চেষ্টা করছিল। ইউরোপের অর্থনৈতিক শক্তির উৎস জার্মানিই শরণার্থীদের পছন্দের তালিকায় সবার শীর্ষে। ইইউতে আগত প্রতি তিন জনের মধ্যে একজনই জার্মানিতে আশ্রয় চাইছেন।

হ্যান্ডেলসব্ল্যাট পত্রিকার খবরে বলা হয়, ১০ লাখ শরণার্থীর তিন-চতুর্থাংশই ২০১৫ সালে জার্মানিতে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করবে বলে বার্লিন মনে করছে। মঙ্গলবার জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক প্রধান এ্যান্টোনিও গুটেরেস আশ্রয়প্রার্থীদের গ্রহণ করার ক্ষেত্রে ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে আরও সংহতিবোধের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, বেশিরভাগ শরণার্থীকে গ্রহণ করা জার্মানি ও সুইডেনের পক্ষে সম্ভব নয়।

এদিকে ফ্রান্স ও ব্রিটেন ফরাসী বন্দর ক্যালাইতে সৃষ্ট অভিবাসী সঙ্কট প্রশমনের চেষ্টায় চলতি সপ্তাহে এক চুক্তি সইয়ের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইংলিশ চ্যানেলের টানেল দিয়ে ব্রিটেনে প্রবেশ করতে মরিয়া হয়ে ওঠা হাজার হাজার লোক ক্যালাইতে সমবেত হয়েছে। ইউরোপে অভিবাসীদের আগমনের মাত্রা হ্রাস পাওয়ার কোন লক্ষণ দেখা দিচ্ছে না। প্রায় আড়াই লাখ অভিবাসী চলতি বছর ভূমধ্যসাগর পার হয়ে ইতালি ও গ্রীসে প্রবেশ করেছে। এ সংখ্যা চলতি বছরের শেষ দিকে তিন লাখ ছাড়িয়ে যাবে বলে মঙ্গলবার ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন জানায়।