২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুর্গাপুর থেকে ‘গুম’॥ ৩ বছর পর ফরিদপুরে আটক

  • প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গুমের নাটক

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে তিন বছর আগে নিজেই আত্মগোপন করেন রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার বাজুখলসী গ্রামের মসলেম উদ্দিন (৬০)। পরে স্ত্রীকে দিয়ে অপহরণ ও গুমের অভিযোগে মামলা করান প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে।

অবশেষে সব লুকোচুরি ও গুমের নাটক ফাঁস হয়ে গেছে। সাড়ে তিন বছর পর মঙ্গলবার রাতে গুম হওয়া মসলেম উদ্দিনকে ফরিদপুর থেকে ধরে এনে দুর্গাপুর থানায় সোপর্দ করে সাজানোর মামলার আসামিরা। বুধবার দুপুরে মসলেম উদ্দিনকে জেলার অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-৩ এ হাজির করা হলে আদালতের বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী জানান, ২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে হঠাৎ বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় উপজেলা বাজুখলসী গ্রামের মসলেম উদ্দিন। এ ঘটনায় তার স্ত্রী সুরজান বেগম বাদী হয়ে ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি প্রতিবেশী বাবর আলী, নাসির হোসেন ও আয়নুল হকের বিরুদ্ধে অপহরণ এবং গুমের অভিযোগ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ১৩৯পি/১২।

এরপর আসামিরা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। কিন্তু আদালতের ধার্য তারিখে তাদের হাজিরা দিতে হচ্ছে এখনও। জামিন পেলেও স্বস্তিতে ছিলেন না আসামিরা। তারা বিভিন্নভাবে খুঁজতে থাকেন নিখোঁজ মসলেমকে। অবশেষ সাড়ে তিন বছর পর ফরিদপুর সদরে খোঁজ পাওয়া যায় তার। সেখানে তিনি ‘সূর্য পাগলা’ ছদ্ম নাম ব্যবহার করে বসবাস করছিলেন। মঙ্গলবার সকালে ফরিদপুর সদর থেকে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আটক করে তাকে রাত ১১টার দিকে দুর্গাপুর থানায় সোপর্দ করা হয়।