১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাড়ি যাচ্ছে মৃত্যুঞ্জয়ী সুরাইয়া

অনলাইন রিপোর্টার ॥ শরীরে গুলির ক্ষত নিয়ে পৃথিবীর আলো দেখার পর প্রায় এক মাস হাসপাতালে কাটিয়ে মায়ের কোলে চড়েই বাড়ি ফিরছে মাগুরার শিশু সুরাইয়া।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সুরাইয়াকে তার মা নাজমা বেগমের কোলে তুলে দিয়ে বাড়ি ফেরার অনুমতি দেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক কানিজ ফাতেমা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, হাসপাতালের চিকিৎসক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

নাজমা সাংবাদিকদেরকে বলেন, আমি আর আমার বাচ্চা এখন সুস্থ। আজই বাড়ি ফিরব।

গত ২৩ জুলাই বিকালে মাগুরা শহরের দোয়ারপাড় এলাকায় যুবলীগকর্মী কামরুল ভূইয়ার সঙ্গে সাবেক যুবলীগকর্মী মহম্মদ আলী ও মেহেদী হাসান আজিবরের সমর্থকদের সংঘর্ষ বাঁধলে এলোপাতাড়ি গুলিতে নিহত হন কামরুলের চাচা আব্দুল মোমিন। আর কামরুলের বড় ভাই বাচ্চু ভূইয়ার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী নাজমা বেগম ও প্রতিবেশী মিরাজ হোসেন গুলিবিদ্ধ হন।

সেদিন রাতেই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নাজমার গুলিবিদ্ধ শিশু পৃথিবীর আলো দেখে। দুদিন পর ২৬ জুলাই ভোরে শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেলে আনা হয়।

এই ঘটনা সারা দেশে আলোড়ন তোলে। হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে মেডিকেল বোর্ড গঠন করে শিশুটির চিকিৎসা চলে।

চিকিৎসকদের চেষ্টায় ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠতে থাকে সুরাইয়া। অবস্থার উন্নতি হওয়ার পর গত ৪ অগাস্ট মেয়ের নাম সুরাইয়া রাখার কথা জানান বাবা বাচ্চু ভূইয়া।

নাজমা সন্তানকে প্রথমবারের মত কাছে পান ঘটনার ১২ দিন পর, গত ৫ অগাস্ট। আর গত রোববার সুরাইয়াকে আইসিইউ থেকে বের করে মায়ের সঙ্গে কেবিনে থাকার সুযোগ দেন চিকিৎসকরা।

ওই সংঘর্ষের ঘটনার তিন নম্বর আসামি মেহেদী হাসান আজিবর ওরফে আজিবর শেখ গত সোমবার রাতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুযুদ্ধে নিহত হন।

ওই ঘটনায় নিহত মোমিনের ছেলের দায়ের করা মামলার ১৬ আসামির মধ্যে পুলিশ প্রধান আসামি সেন সুমনসহ ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে।

জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সেন সুমনকে গত ২ আগস্ট ঢাকার কল্যাণপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

নির্বাচিত সংবাদ