১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুন্সীগঞ্জে গণপরিবহনে যাত্রীবহনের দাবিতে মানববন্ধন

মুন্সীগঞ্জে গণপরিবহনে যাত্রীবহনের দাবিতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ মহাসড়কে গণপরিবহনে যাত্রী বহনের দাবিতে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার সমষপুর বাসস্ট্যান্ডে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা মানববন্ধন করেছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ মানববন্ধন হয়। এদিকে ইজি বাইক চালক ও সমষপুর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রছাত্রীরা। বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত যানচলাচল বন্ধ করে রাখে অবরোধকারীরা। এতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের উভয় দিকে ৫ কিলোমিটারে যানজট সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশের মধ্যস্থতায় মহাসড়ক থেকে চলে যায় মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা।

ঢাকা মাওয়া মহাসড়কে তিন চাকার গাড়ী চলাচলের দাবীতে ও বাস থেকে এক ছাত্রকে গলা ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দেওয়ার প্রতিবাদ জানানো হয়। পুলিশ অবরোধ সরাতে গেলে তিন চাকার গাড়ী চালকদের পক্ষ নিয়ে সমষপুর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রছাত্রীরা মুখোমুখি অবস্থান নেয়।

শিক্ষার্থীরা জানায়, বাস চালকরা তাদেরকে বাসে উঠাতে চায়না। অপরদিকে মহাসড়কে তিন চাকার গাড়ী বন্ধ থাকায় তাদের ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তায় দাড়িয়ে থাকতে হয়। এতে স্কুল কলেজ গামী ছাত্রছাত্রীদের চরম বিপাকে পরেছে। সমষপুর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আ. রহিম সরকার জানান, বিদ্যালয়ের এক ছাত্র স্কুলে আসার জন্য বাসে উঠতে চাইলে তাকে বাস থেকে গলা ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দেওয়া হয়। এ খবর বিদ্যালয়ে এসে পৌছলে বিক্ষুব্ধ ছাত্র-ছাত্রীরা রাস্তায় নেমে আসে। বিক্ষুব্ধ ছাত্রÑছাত্রীরা জানায়, আমাদেরকে হয় বাসে যাতায়াত করতে দিতে হবে, না হয় তিন চাকার গাড়ী চালু করতে হবে। এর একটা সুরাহা করার জন্যই তারা রাস্তায় নেমে এসেছে। অবরোধে রাস্তার দুপাশে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। দুপুর সাড়ে বারটার দিকে পুলিশ বাস মালিকদের সাথে আলোচনা করে ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলের আশ্বাষ দিলে ছাত্র ছাত্রীরা অবরোধ তুলে নেয়।

ব্যাটারিচালিত ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা মহাসড়কে চলাচল বন্ধ হওয়ায় স্বল্প দূরত্বের যাত্রীরা পড়েছে বিপাকে। বিশেষ করে ঝামেলায় পড়েছে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। যাত্রীবাহী বাসগুলো স্টপেজে না থামায় গন্তব্যে যেতে তাদের দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করতে হয়।

শিক্ষার্থীরা জানান, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে চলাচলরত বাসগুলো তাদের নিতে চায়না। ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থেকে এক সময় স্কুলের সময় শুরু হয়ে যায়। যখন কোন পরিবহন পাই ততক্ষনে ক্লাস শুরু হয়ে যায়। আগে নসিমন, টমটন ও ব্যটারি চালিত রিক্সা চলাচল করায় খুব সহজেই স্কুলে যাওয়া আসা করা যেতো।

মুন্সীগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার মো. সামসুজ্জামান বলেন, ‘সত্যিই মহাসড়কে গণপরিবহন সংকট রয়েছে। গণপরিবহনে যাত্রী বহনের ব্যাপারে মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। পরিবহন মালিকদের সঙ্গেও কথা হয়েছে। বিআরটিসির দোতলা বাসগুলো ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে চলাচল করছে। তবে প্রয়োজনের তুলনায় কম।’

শ্রীনগর থানার সেকেন্ড অফিসার মো. মাসুদ রহমান খান বলেন, ‘সকাল থেকে বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী গিয়ে জড়ো হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে। পরে আমরা তাদের বুঝিয়ে অবরোধ তুলে নিই। আমরা বাস মালিক সমিতির সঙ্গে কথা বলে দ্রুত ব্যবস্থা নেব।’