২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরিশালে সন্ত্রাসীর হাতে আধুনিক মারণাস্ত্র

  • আতঙ্কে নগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধানে নগরীসহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা একাধিক অত্যাধুনিক অস্ত্র উদ্ধার করেছেন। আকস্মিকভাবে অস্ত্রের আনাগোনা বৃদ্ধি পাওয়ার ঘটনায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে প্রশাসন। খোদ নগরবাসীর মধ্যেও এক ধরনের ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, এসব অস্ত্র কোন পথে বরিশালে প্রবেশ করছে এবং কারা নিয়ে আসছে এমন ব্যক্তিদের খোঁজে অনুসন্ধান চলছে। পাশাপাশি অস্ত্রসহ আটক ব্যক্তিদেরও জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে মেট্রোপলিটন পুলিশের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে যেসব অস্ত্রগুলো উদ্ধার করা হয়েছে সেগুলো খুব ক্ষমতাসম্পন্ন। আর এসব অস্ত্রগুলো কিভাবে অপরাধীর হাতে আসছে সে বিষয়টি জানতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপরতা শুরু করেছেন।

সূত্রমতে, গত ১৩ আগস্ট রাতে নগরীর কলেজ এভিনিউ এলাকা থেকে ওমর ফারুক নামের এক যুবককে অত্যাধুনিক কাটা রাইফেল ও গুলিসহ গ্রেফতার করে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ওমর ফারুক গাজীপুর জেলার শহীদুল ইসলামের পুত্র। এসব অস্ত্র সাধারণত খুব কম দেখা যায়। আর যাদের কাছে রয়েছে তারা বড় ধরনের কিলার। এ ঘটনার দু’দিন পূর্বে নগরীর তালতলী এলাকা থেকে মজনু নামে এক যুবককে একটি পাইপগান ও কার্তুজসহ গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। এর আগে গত মাসে সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নের রাজারচর থেকে একটি অত্যাধুনিক কাটা রাইফেলসহ একজনকে আটক করে পুলিশ। এ ঘটনার পরপরই র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা জেলার উজিরপুর উপজেলার ধামুড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ এক ব্যক্তিকে আটক করে। পর পর বেশ কয়েকটি অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় উৎকণ্ঠা বেড়ে গেছে বরিশালবাসীর মধ্যে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধুরী বলেন, যেসব অস্ত্র উদ্ধার হচ্ছে তা খুব আধুনিক। এসব অস্ত্র তেমন একটা দেখা যায় না। সঙ্গতকারণে বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।

দুদকের মামলায় সিরাজগঞ্জে প্রধান শিক্ষক কারাগারে

স্টাফ রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ ॥ কাজীপুর উপজেলার পরাণপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কোবাদ হোসেনকে দুদকের দায়ের করা মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইবুনালের বিচারক এবং জেলা ও দায়রা জজ জাফরোল হাসান তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলায় দুদকের পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট সুকুমার চন্দ্র দাস জানান, ২০১৩ সনে পরাণপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রায় ৪ লাখ ২৪ হাজার টাকা আত্মসাত করেন উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। পরবর্তীতে দুদকের বরাবর একটি অভিযোগ পত্র প্রেরণ করা হয়। অভিযোগ পাওয়ার পর একই বছর ৩০ জুন দুদকের উপ-পরিচালক রাম মোহন নাথ তদন্ত করেন। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালতে একটি মামলা দায়ের করে দুদক। মামলায় প্রধান শিক্ষক কোবাদ হোসেন ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমানকে অভিযুক্ত করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে অভিযুক্তরা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানান।