২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নওগাঁর খলসানীর কদর বেড়েছে

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ, ২০ আগস্ট ॥ বর্ষা মৌসুম। খালে-বিলে, মাঠে-ঘাটে পানি জমেছে। এমন সময় ছোট ছোট মাছ ধরার ধুম পড়ে যায় পাড়ায়-মহল্লায়। এই ছোট মাছ ধরার সরঞ্জামের মধ্যে খলসানী অন্যতম। জেলার হাটে-বাজারে খলসানী বিক্রির ধুম পড়েছে। বুধবার নওগাঁ হাটে বিক্রির জন্য আনা হয়েছিল কয়েক হাজার খলসানী। দামও বেশ চড়া।

নওগাঁ শহরের আলুপট্টিতে প্রতি বুধবার বসে খলসানীর হাট। এদিনও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কয়েক হাজার খলসানী নিয়ে বসে আছে বিক্রেতা। ক্রেতার সংখ্যাও কম নয়। কথা হলো, খলসানী বিক্রেতা গোকুল, নিতাই, সুদাম, বিশ্বনাথসহ অনেকের সঙ্গে। ওরা ৫০/৬০ জন খলসানী বিক্রেতা রানীনগর উপজেলার নিজামপুর গ্রামের বাসিন্দা। ওই গ্রামটি এখন খলসানী গ্রাম নামে পরিচিত। ওই গ্রামের ১৪০ পরিবারের নারী-পুরুষ সকলেই এখন নিপুণ হাতে খলসানী তৈরির কাজে মহাব্যস্ত।

জানা গেছে, রানীনগর উপজেলার নিজামপুর, ঝিনা, কাশিমপুর, খট্টেশ্বরসহ বিভিন্ন গ্রামে ঋষি সম্প্রদায়ের লোকজন তাদের পূর্ব পুরুষের রেখে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী বাঁশ ও বেতের শিল্পটি ধরে রেখেছেন। গ্রামগুলোর ঋষি সম্প্রদায়ের পরিবারের সদস্যরা মিলে বর্ষা মৌসুমে তাদের নিপুণ হাতে এসব খলসানী তৈরি করে হাটে-বাজারে বিক্রি করে থাকে।

বাঁশ, কর্ডের সুতা এবং তাল গাছের আঁশ দিয়ে তৈরি এসব খলসানী মানের দিক দিয়ে ভাল হওয়ায় স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের অঞ্চল ভেদে বিশেষ করে হাওর অঞ্চলে ছোট মাছ শিকারি এখান থেকে পাইকারি মূল্যে কিনে ট্রাক বোঝাই করে খলসানী নিয়ে যায়। ফলে বর্ষা মৌসুমে এর কদর বেশি।

চট্টগ্রামে দেহরক্ষীসহ প্রবাসী গ্রেফতার

অবৈধ অস্ত্র

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ নগরীর বায়েজিদ থানা এলাকায় অবৈধ অস্ত্রসমেত দেহরক্ষী নিয়ে ঘোরাফেরার সময় গ্রেফতার হয়েছে এক প্রবাসী। গত বুধবার রাত দেড়টার দিকে একটি বেবিট্যাক্সিতে তল্লাশি চালিয়ে এ দু’জনকে আটক করে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একটি পিস্তল। সিএমপির বায়েজিদ বোস্তামী থানা সূত্র জানায়, রাতে স্টারশিপ কারখানা এলাকায় একটি বেবিট্যাক্সিযোগে ঘোরাফেরা করছিলেন মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী ফিরোজ উদ্দিন সাবু (২৯) ও তার দেহরক্ষী অপু দে (২৪)। এত রাতে সিএনজি অটোরিকশাটির চলাচল সন্দেহজনক মনে হলে পুলিশ এটিকে থামিয়ে তল্লাশি চালায়। এ সময় দেহরক্ষী অপু দে’র কাছে পাওয়া যায় একটি পিস্তল। পুলিশ তাকে ও প্রবাসী সাবুকে গ্রেফতার এবং আগ্নেয়াস্ত্রটি উদ্ধার করে।