২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গ্রীসকে ২৩০০ কোটি ইউরো

  • ঋণ পরিশোধের জন্য তৃতীয় বেইলআউটের প্রথম কিস্তি

ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের (ইসিবি) একটি বড় অঙ্কের ঋণ পরিশোধের সময় চলে আসার প্রাক্কালে গ্রীস বৃহস্পতিবার কয়েক শ’ কোটি ইউরোর তৃতীয় বেইলআউটের (দেউলিয়াত্ব ঠেকাতে অর্থ সহায়তা) প্রথম কিস্তি লাভ করেছে। এ বিষয়ে একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার এথেন্সকে ইসিবির ৩শ’ ৪০ কোটি ইউরো ঋণ পরিশোধ করার সুযোগ করে দিয়ে ২ হাজার ৫শ’ কোটি ডলারের সমপরিমাণ দু’ হাজার ৩শ’ কোটি ইউরো দেয়া হয়েছে। খবর এএফপির।

ইউরো জোনের অর্থমন্ত্রীরা আনুষ্ঠানিকভাবে ৮ হাজার ৬শ’ কোটি ইউরোর তৃতীয় বেইলআউটের বিনিময়ে সংস্কারের প্যাকেজ অনুমোদনের পর গ্রীস বুধবার ঋণ পরিশোধ শুরু করার সবুজ সঙ্কেত পায়।

জার্মানির বুুন্ডেস্টাগসহ ইউরোপীয় পার্লামেন্টগুলো নতুন বেইলআউট অনুমোদন করার পর গ্রীসের তহবিলপ্রাপ্তি নিশ্চিত হয়।

ডাচ অর্থমন্ত্রী জেরোয়েন দ্রিজসেলব্লোয়েম বলেন, ‘এই চুক্তি গ্রীস অর্থনীতির বাস্তব অবস্থা তুলে ধরার এবং টেকসই প্রবৃদ্ধির একটি ভিত্তি গড়ে তুলবে।’ ইউরোজোন অর্থমন্ত্রীদের সমিতি ইউরো গ্রুপের সভাপতি জেরোয়েন অঙ্গীকার করেছেন যে, কর্মকর্তারা ঘনিষ্ঠভাবে প্রক্রিয়ার ওপর নজর রাখবে। প্রধান প্রধান জাতীয় পার্লামেন্টের অনুমোদনসাপেক্ষে জেরোয়েন ও ইউরোজোনের অন্যান্য অর্থমন্ত্রী গত ১৪ আগস্ট গ্রীসকে একক মুদ্রা ইউরোতে রাখা, দেশটির বিল পরিশোধ এবং বিপর্যস্ত অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে বেইলআউট অনুমোদন করে।

জার্মান পার্লামেন্ট বুধবার তৃতীয় বেইলআউটকে সমর্থন দানের জন্য বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ভোট প্রদান করে। চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মেরকেল ঋণ সাহায্যের বিরোধিতাকারী ডেপুটিদের একটি বড় ধরনের বিদ্রোহ এড়াতে সক্ষম হন। গ্রীক বেইলআউটের পক্ষে ভোট দিতে চলতি গ্রীষ্মে দ্বিতীয়বারের মতো আইনপ্রণেতারা তাদের অবকাশ কমিয়ে দেন। বুন্ডেস্টাগের নিম্ন পরিষদে ৪৫৩-১১৩ ভোটে পুনরুদ্ধার পরিকল্পনাকে অনুমোদন দেয়া হয়। ৮ জন ডেপুটি ভোট দানে বিরত থাকেন।

এদিকে, গ্রীক প্রধানমন্ত্রী ব্যয় সঙ্কোচনের বেইলআউট আলেক্সিস সিপরাসের কট্টর বামপন্থী সিরিজা পার্টির মধ্যে বিভক্তির সৃষ্টি করায় তিনি বুধবার আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠান করা যায় কি না সে ব্যাপারে সতর্ক চিন্তা ভাবনা করেন। পার্টিতে বিভক্তি সিপরাসকে পার্লামেন্টে আর কোন সংস্কার বিল পাস করাতে শক্তিহীন করে তুলেছে। আগামী সপ্তাহে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গত জানুয়ারিতে কর বৃদ্ধি, ব্যয় সঙ্কোচন এবং সংস্কারের বিরুদ্ধে গণরোষের মুখে সিপরাস ক্ষমতাসীন হন। ঋণদাতারা ২৪ হাজার কোটি ইউরোর পূর্ববর্তী দুটি বেইলআউটের বিনিময়ে এসব শর্ত পূরণের দাবি করেছিলেন।

তিনি বলেন, গ্রীসের ঋণদাতা ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক, আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল ও ইউরোপীয় স্ট্যাবিলিটি মেকানিজম গত নবেম্বরে সংস্কারের প্রতিশ্রুতি পালনের প্রথম মূল্যায়ন সমাপ্ত হওয়ার পর সরকারী ঋণ লাঘব পদক্ষেপ বিষয়ে আলোচনা করতে সম্মত হয়েছিল।

গ্রীক প্রধানমন্ত্রী ইউরোপীয় পার্লামেন্টকে সম্প্রতি অনুমোদিত বেইলআউট চুক্তি তদারক করতে ঋণদাতা চতুষ্টয়ের সঙ্গে যোগদানের আহ্বান জানিয়েছেন। বুধবার গ্রীসের অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বর্তমানে গ্রীসের ঋণ দাঁড়িয়েছে ৩১ হাজার ২শ’ ৮০ কোটি ইউরো।