২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইস্তাম্বুল প্রাসাদে পিকেকে হামলায় ৮ সৈন্য নিহত

ইস্তাম্বুলে বুধবার প্রাসাদের বাইরে পুলিশের ওপর গুলি ছুড়েছে বন্দুকধারীরা। এবং শহরের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ৮ সৈন্য এক বোমা বিস্ফোরণে নিহত হয়েছে। এতে তুরস্কের নেতারা যখন একটি নতুন সরকার গঠনের চেষ্টা করছেন তখন এ সঙ্কট বোধ তীব্রতর হয়ে দেখা দিয়েছে। খবর ওয়েবসাইটের।

ইস্তাম্বুলের গবর্নরের অফিস থেকে বলা হয়েছে, দোলমাবাসি প্রাসাদে হামলা চালানোর পর হাতবোমা ও স্বয়ংক্রিয় রাইফেল সজ্জিত এক সন্ত্রাসী গ্রুপের ২ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। প্রাসাদটি পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় এবং প্রধানমন্ত্রীর ইস্তাম্বুল দফতর হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা আনাদোলু জানায়, হামলায় পুলিশ কর্মকর্তা কিছুটা আহত হয়েছেন। সামরিক বাহিনী বলেছে, কুর্দিস্থান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) জঙ্গীরা ইতোমধ্যে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ সির্তয়ে রাস্তার পাশে বোমা পেতে ৮ সৈন্যকে হত্যা করেছে।

গত মাসে দু’বছরের যুদ্ধবিরতি ভেঙ্গে পড়ার পর সেখানে সংঘাত তীব্রতর হয়ে উঠছে। ২০১২তে সরকার ও পিকেকে’র মধ্যে স্বাক্ষরিত ঐ শান্তি চুক্তি ভেঙ্গে যাওয়ার পর থেকে প্রায়ই হামলার ঘটনা ঘটছে। অন্যদিকে, সেনাবাহিনীও নিয়মিত পিকেকে’র বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে। তুরস্ক, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও যুক্তরাষ্ট্র দলটিকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করে।

সংবাদ সংস্থা জানায়, নিরাপত্তা বাহিনী দাইয়ারবাকির প্রদেশে গত দুদিনের সংঘাতে পিকেকে’র ১৮ জঙ্গীকে হত্যা করেছে।

কায়রোতে গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে ৬ পুলিশ আহত

মিসরের রাজধানী কায়রোতে বৃহস্পতিবার একটি পুলিশ ভবনের সামনে শক্তিশালী গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে ছয় মিসরীয় পুলিশ আহত হয়েছে। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একথা জানিয়েছে। খবর এএফপির

কায়রোর উত্তরাঞ্চলে শুবরা অঞ্চলে শক্তিশালী বিস্ফোরণটি ঘটে।

দেশটিতে প্রায়ই ইসলামিক স্টেট জিহাদীরা নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে হামলা চালায়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ‘এক ব্যক্তি রাষ্ট্রের নিরাপত্তা ভবনের সামনে আকস্মিক গাড়ি থামিয়ে লাফিয়ে গাড়ি থেকে বের হয়। এরপর একটি মোটরসাইকেলে করে পালিয়ে যায়। ওই মোটরসাইকেলের চালক গাড়িটির পিছনে আসছিল।’ এরপরই গাড়িটি বিস্ফোরিত হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘বিস্ফোরণে ভবনটির একটি অংশ ধ্বংস হয়েছে।’

প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাতাহ আল সিসির সন্ত্রাসবিরোধী আইন অনুমোদনের কয়েক দিন পরই হামলাটি চালান হলো।