২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

একজন সফল নারী

নিশাত আরা আলম। পেশায় সফটওয়্যার প্রকৌশলী। গল্পটার এখানেই শেষ নয়, বরং শুরু। পড়াশোনা শেষে আর দশটা ছেলেমেয়ে যখন হন্যে হয়ে চাকরির পেছনে ঘোরে, সে ক্ষেত্রে নিশাত আরা আলমের গল্পটা একটু ভিন্নই। চাকরির পেছনে নিশাত কি ঘুরবেন বরং চাকরি এখন তার পেছনে ঘুরছে। দেশ-বিদেশ মিলিয়ে পড়াশোনা নিশাতের। নিশাত ইনফরমেশন টেকনোলজি এবং অটোমোশন সিস্টেম বিষয়ে মাস্টার গ্র্যাজুয়েশন করেছেন জার্মানির ইউনিভার্সিটি অব এ্যাপ্লাইড সায়েন্স থেকে। আর দেশে এনসিসি এডুকেশন ইউকে এর অধীনে ড্যাফোডিল ইনস্টিটিউট অব আইটি (ডিআইআইটি) হতে ইনফরমেশন টেকনোলজি (আইটি) বিষয়ে বিএসসি অনার্স গ্রোগ্রামে পড়াশোনা করে সনদ লাভ করেন।

নিশাত আরা আলম কাজ করেছেন মূলত জাভা এবং ডট নেট প্রযুক্তির সঙ্গে। জাভা স্প্রিং ফ্রেমওয়ার্কে রয়েছে তার বিশেষ দক্ষতা। আগস্ট ২০১১ সাল হতে এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার এম্পায়ার ওয়ান গ্রুপে সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত আছেন। আগে তিনি ওয়েব ডেভেলপার হিসেবে কাজ করেছেন ফেইরফ্যাক্স ডিজিটাল, সিডনি, অস্ট্রেলিয়ায়। তাছাড়া তিনি সফটওয়্যার ডেভেলপার হিসেবে কাজ করেছেন কোয়েক্সটান্ট প্রফেশনাল সার্ভিসে। জার্মানির মানহেইম ইউনিভার্সিটির রিসার্চ এ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবেও কর্মরত ছিলেন। তার এ রকম সাফল্যের পেছনে ছোট একটি সিদ্ধান্ত তাকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে গেছে। উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর কি করবেন, কোথায় পড়বেন এ চিন্তাতেই মশগুল ছিলেন। পরে অবশ্য সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেললেন নিশাত। ধানম-িস্থ ড্যাফোডিল ইনস্টিটিউট অব আইটিতে বিএসসি অনার্স ইন আইটি প্রোগ্রামে ভর্তি হলেন এবং সফলতার সঙ্গে প্রোগ্রামটি সম্পন্ন করার পরই জার্মানির ইউনিভার্সিটি অব এ্যাপ্লাইড সায়েন্সে পড়ার সুযোগ আসে। নিশাত আরা আলমের কাছে এ সিদ্ধান্ত অনেক গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ ‘আমাদের দেশে মেয়েদের আইটি বিষয়ে পড়াশোনা এখনও অতটা প্রাধান্য পায়নি’। এ কারণে প্রথমে তো ভয়েই ছিলাম। আইটিতে পড়াশোনা করে ভবিষ্যতে কি করবম সে চিন্তাই বেশি কাজ করছিল। শেষে দেখলাম সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে পড়াশোনা করলে অনেক দূর এগিয়ে যাওয়া সম্ভব। বাংলা, ইংরেজী ও জার্মান ভাষায় তাঁর দক্ষতা রয়েছে। জাভা, সি-শার্প, ওয়েব সার্ভিস, হাইবারনেট, জেকুয়েরি, সিএসএস-৩, এইচ, টি, এম, এল-৫, মাই এসকিউএল, রুবি, পাইথন, ফেসবুক এপিআইসহ নানা বিষয়ে তার দক্ষতা রয়েছে।

যাঁরা তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে পড়াশোনা করে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাঁদের উদ্দেশে নিশাত আরা আলমের একটাই কথা- নিজের স্বপ্ন নিয়ে আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। আর সে আত্মবিশ্বাসকে পুঁজি করে নিজের জীবন গড়তে হবে। এখানে কোন আবেগ বা খামখেয়ালির স্থান নেই। নিজের জয়ের জন্য তো একটু অপেক্ষা করতেই হবে। নিশাত আরা আলম স্বপ্ন দেখেন, এ দেশের নারীরা একদিন তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে দেশের সেরা চাকরি লুফে নেবে নিজের যোগ্যতায়। আর হয়ত একদিন বিশ্বের সেরা আইটি চাকরিতে আমাদের দেশের নারীরা নেতৃত্ব দেবে।

অপরাজিতা ডেস্ক