১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজও স্বাভাবিক খাবার খেতে পারে না এ্যাসিডদগ্ধ দুর্জয়

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ ভাল নেই শিশু দুর্জয়, যাকে ১১ বছর আগে ১ মাস ১৯ দিন বয়সে তার চাচি এ্যাসিড পান করিয়ে দিয়েছিলেন। মুখের বাইরে ও ভিতরে দগ্ধ হয়ে ১১ বছরের দুর্জয় এখনও তরল খাবার গ্রহণ করে। তবে মুখ দিয়ে নয়, চিকিৎসকরা পেটে একটি নল সংযোগ করে দিয়েছেন, তারই মাধ্যমে পেটে খাবার ঢোকানো হয় তার। বোবা শব্দে কথা বলার চেষ্টা করে। একমাত্র সন্তানটিকে নিয়ে দুঃশ্চিন্তার অন্ত নেই যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার আজমেহেরপুর গ্রামের ইতি রানী ও আশুতোষ তরফদারের। এখনই বিদেশে নিয়ে তার অস্ত্রপাচার প্রয়োজন বলে জানালেন তারা। দুর্জয়কে এ্যাসিড পান করিয়ে হত্যা চেষ্টা মামলার রায় হয়েছে গত রবিবার। আদালত মৃত্যুদ-াদেশ দিয়েছেন তার চাচি রীনা রানী তরফদারকে। তিনি পলাতক। ছোট্ট শিশুটিকে কেন এ্যাসিড পান করালেন তার চাচি এমন প্রশ্নের জবাবে দুর্জয়ের মা ইতি রানী বললেন, দুর্জয়ের বাবারা তিন ভাই। তাদের কোন ছেলে নেই। রীনা রানীর দুই মেয়ে। তাদের ঘরেই জন্ম নেয় একমাত্র ছেলে সন্তান। এই প্রতিহিংসায় এ জঘন্য কাজ করেছে রীনা। দুর্জয়ের বাবা আশুতোষ তরফদার বলেন, সেই দুঃসহ যন্ত্রণা আজও বয়ে বেড়াচ্ছে তার ছোট্ট সন্তান। স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী হলেও কথা বলতে পারে না সে। ১১ বছর বয়স হলেও প্রয়োজনীয় খাবার সে খেতে পারে না।