২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বন্দর নগরীর সড়কে চলাই দায়

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ কোথাও ছোট-বড় গর্ত আবার কোথাওবা কার্পেটিং উঠে গেছে। কোথাও আবার সড়কই বোঝার উপায় নেই। বন্দর নগরী চট্টগ্রামের অধিকাংশ রাস্তারই এখন এমন বেহাল দশা।

সঙ্গে ধুলোবালি যুক্ত হয়ে পুরো শহর জুড়ে তৈরি হয়েছে নরকের অবস্থা। টানা বৃষ্টি আর জলজটের কারণে এবড়ো-থেবড়ো এসব রাস্তায় চলা যেমন দায়, তেমনি ছোটখাটো দুর্ঘটনা এখন নিত্য দিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। জুনের শেষভাগ থেকে অগাস্টের শুরু পর্যন্ত চট্টগ্রামে বৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে ৩০ জুলাই থেকে ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেনের’ প্রভাবে নগরীতে বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতা ব্যাপক আকার ধারণ করে। পানি সরে যাওয়ার পরই বেশিরভাগ সড়ক কঙ্কালসদৃশ চিত্র নিয়ে ভেসে ওঠে। আগ্রাবাদ এক্সেস সড়ক, পোর্ট কানেকটিং সড়ক, বিমানবন্দর সড়ক, জাকির হোসেন রোড, সিডিএ এ্যাভিনিউ, সিরাজউদ্দৌলা সড়ক এবং আরাকান সড়কের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। এছাড়া খাতুনগঞ্জ, আছাদগঞ্জ, কাতালগঞ্জ, সদরঘাট, হালিশহর, মাদারবাড়ি এবং বাকলিয়া এলাকার সড়কও কম-বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আগ্রাবাদ এক্সেস সড়কের বাদামতলী মোড় থেকে ব্যাপারী পাড়া মোড় পর্যন্ত অংশে বড় বড় গর্ত। পুলিশ লাইন থেকে বড়পোল মোড় পর্যন্ত সড়কের বেশিরভাগ জুড়ে আছে ছোট আকারের গর্ত। আগ্রাবাদ এলাকায় বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা সুব্রত বড়ুয়া পিন্টু বলেন, ‘নগরীর সড়কগুলোয় যে কোন যানবাহনে চলাচল মানেই অসুস্থ হয়ে যাওয়া। এক ধরনের নরক যন্ত্রণার মধ্য দিয়েই আমাদের চলাচল করতে হচ্ছে।’ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে এবং বন্দরগামী পণ্যবাহী ট্রাক ও কভার্ড ভ্যান চলাচল করে পোর্ট কানেকটিং সড়ক ধরে। আর সড়কেরই নিমতলা দিয়ার পাড়া অংশ থেকে পোর্ট ইস্ট কলোনি পর্যন্ত কার্পেটিং নেই। পুরো সড়কই এখন মাটির আর তাতে বড় বড় গর্ত। ইট দিয়ে পোর্ট কানেক্টিং সড়কের খানা-খন্দ সাময়িকভাবে মেরামত করা হয়েছে এই সড়কের বড়পোল থেকে হালিশহর ওয়াপদা মোড় পর্যন্ত অংশে বাম পাশে কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। তবে ডান পাশে এখনো বড় বড় গর্ত এড়িয়ে চলছে ভারি যানবাহন। এ প্রসঙ্গে কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ইয়াকুব নবী বলেন, ‘পোর্ট কানেকটিং ও আরাকান সড়কে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সংস্কার চলছে।

বরিশাল মহানগর আ’লীগের

কা-ারী হচ্ছেন কে!

নির্বাচিত সংবাদ