১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পদ দখল নিয়ে চলছে জমজমাট লড়াই

খোকন আহম্মেদ হীরা, বরিশাল ॥ কে হচ্ছেন বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের কা-ারী? এ প্রশ্নের উত্তরের ওপর নির্ভর করছে অনেক কিছু। বর্তমানে এক নেতার দলে পরিণত হওয়া মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। কারণ এ পদের ওপরই নির্ভর করছে বরিশাল মহানগরীতে এককালের বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত আওয়ামী লীগের আগামী দিনের ভবিষ্যত।

যে কারণে পদটির দখল নিয়ে লড়াইটাও বেশ জমজমাট। দলীয় সূত্রমতে, আগামী মাসেই মহানগর আ’লীগের কমিটি ঘোষণা হতে যাচ্ছে। এমন খবরে পদপ্রত্যাশী প্রায় একডজন নেতা কেন্দ্রে যে যার মতো করে লবিং ও তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করতেও ওই সব পদপ্রত্যাশীরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন থেকে তৃণমূলের অগোছালো দলকে সু-সংগঠিত করার মাধ্যমে দলীয় ও কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনসহ নেতাকর্মীদের সুখ-দুঃখের সাথী হয়ে সর্বস্তরে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন মহানগর আ’লীগের সভাপতি পদপ্রত্যাশী কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। নগরীর রিক্সাচালক থেকে শুরু করে দলের তৃণমূল পর্যায়ের অসংখ্য নেতাকর্মী বলেন, বরিশালে স্থায়ী বসবাসের মাধ্যমে যেকোন মানুষের বিপদে-আপদে গভীর রাতেও পাশে গিয়ে ছায়া হয়ে দাঁড়ানোসহ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান সাদিক আব্দুল্লাহকে মহানগর আ’লীগের সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হলে দলে কোন বির্তক থাকবে না।

সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও সাবেক চীফ হুইপ আলহাজ আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ এমপির জ্যেষ্ঠ পুত্র। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও নির্যাতিত সিনিয়র একাধিক নেতা বলেন, আমাদের বয়স বেড়ে যাওয়ায় ইচ্ছে হলেই দলীয় কর্মসূচীসহ যখন তখন আন্দোলন-সংগ্রামে অংশগ্রহণ করতে পারছি না। সর্বস্তরেই এখন তরুণদের জয়জয়কার। তাই প্রজন্মর হাতেই নেতৃত্ব দিয়ে আমরা উপদেষ্টা হয়ে থাকতে চাই।

বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট আফজালুল করিম বলেন, শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুর পর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় চলছে মহানগর আওয়ামী লীগ। পরবর্তীতে তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন তা মেনে নিয়েই রাজনীতি করব।