২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দেশের অর্থনীতিতে আমজাদ খান চৌধুরীর অবদান অনন্য

  • স্মরণসভায় বক্তারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রধান নির্বাহী ও নাটোর জেলা সমিতির প্রাক্তন সভাপতি মেজর জেনারেল আমজাদ খান চৌধুরীর (অব) স্মরণসভায় বক্তারা বলেন, কৃষিপণ্য উৎপাদন এবং প্রক্রিয়াজাত করার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে আমজাদ খান অনন্য অবদান রেখেছেন। উত্তারঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত কাজ করে গেছেন তিনি। দেশের মানুষ তাঁর অবদান কৃতজ্ঞতাভরে স্মরণ করবে। তাঁকে স্মরণ রাখার জন্য শিক্ষাবৃত্তি চালু করা যেতে পারে। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর খামারবাড়ী কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে ঢাকায় নাটোর জেলা সমিতি ও বৃহত্তর রাজশাহী সমিতির আয়োজনে ওই স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল হয়েছে।

এ সময় আমজাদ খান চৌধুরীর ছেলে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান খান চৌধুরী বলেন, নাটোরে থাকার সৌভাগ্য না হলেও রাজশাহী-নাটোরের মানুষকে আমি বাবার মতোই ভালবাসি। সে অঞ্চলে ব্যবসা করেই আজকে আমাদের গ্রুপের এ অবস্থান। বাইরে ভারত, নেপাল ও উগান্ডায় আমাদের ব্যবসা প্রসারিত হচ্ছে। উগান্ডা আমাদের ৫ একর জমি দিয়েছে। আমরা বহু মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সক্ষম হয়েছি। প্রতিবছর নতুন ২১ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারব।

আমজাদ খান চৌধুরীর ছোটভাই বশির খান চৌধুরী বলেন, পরিবারের কাউকে না জানিয়েই তিনি তার দুটি চোখ দান করে গিয়েছিলেন। মৃত্যুর পর তা আমরা জানতে পারি। স্মরণ রাখার দায়িত্ব তাঁর ছেলে আহসান খান চৌধুরীর। আমজাদ খানের নাম যেন না মুছে যায় এজন্য শিল্পের পাশাপাশি এ প্রতিষ্ঠানকে শিক্ষায়ও অবদান রাখতে হবে।

বাংলাদেশ এ্যাগ্রো প্রসেসর্র্স এ্যাসোসিয়েশন (বাপা) সভাপতি এএসএম ফকরুল ইসলাম মুন্সি বলেন, আমজাদ চৌধুরীর কারণে পৃথিবীর ১৪০ দেশে বাংলাদেশের পণ্য রফতানি করতে পেরেছি। উনি যদি বাপা প্রতিষ্ঠা না করতেন তাহলে এটা সম্ভব হতো না।

রাজশাহী সমিতির সভাপতি বেনাউল ইসলামের সভাপতিত্বে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলে আমজাদ খান চৌধুরীর স্মৃতিচারণ করে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিচারপতি এমদাদুল হক আজাদ, অতিরিক্ত সচিব বজলুর রহমান, প্রাণের পরিচালক ইলিয়াস মৃধা, নাটোর সদরের এমপি আলহাজ শফিকুল ইসলাম সেলিম, যুব মহিলা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, রাজশাহী ম্যাংগো প্রোডাক্টস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রাজু আহমেদ ও কৃষিবিদ অধ্যাপক রেদোয়ান ইসলাম মুকুল।