২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করে সচিবদের কাজ করার আহ্বান ডেপুটি স্পিকারের

অনলাইন রিপোর্টার ॥ মুক্তিযুদ্ধের নয় মাসের ইতিহাস স্মরণ রেখে নিরপেক্ষতার সঙ্গে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের কাজ করতে আহ্বান জানিয়েছেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া।

তিনি বলেছেন, “সবকিছু ভুলে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধের নয় মাসের কথা মাথায় রাখবেন। নিরপেক্ষতা বজায় রেখে জনগণের সেবা করবেন।”

শনিবার সংসদ ভবনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিবদের অংশগ্রহণে এক কর্মশালায় ডেপুটি স্পিকার এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, “সিঙ্গাপুর-মালয়েশিয়া যা পেরেছে আমরা তা পারব না কেন? মুক্তিযুদ্ধের কথা মাথায় রাখলেই সেটা সম্ভব।”

“সরকারি কর্মচারিীদের নিরপেক্ষতা আমরা আশা করি। নিরপেক্ষতা না থাকলে রাষ্ট্র-জনগণকে সেবা দিতে পারবেন না। সত্যকে সত্য না বললে নিরপেক্ষতা থাকে না।”

সংসদের শপথ কক্ষে ‘উন্নত হিসাব ও সাশ্রয়ী ব্যয় ব্যবস্থাপনা এবং শুদ্ধাচার চর্চা’ শীর্ষক এই কর্মশালার আয়োজন করে সরকারি হিসাব কমিটি।

অনুষ্ঠানে সরকারি হিসাব কমিটির সভাপতি, সাবেক সচিব মহীউদ্দিন খান আলমগীর বলেন, “সরকারের সাবেক কর্মচারী হিসেবে আমি সচিবদের কাজের সীমাবদ্ধতা জানি। সচিবরা মুখ্য হিসাব কর্মকর্তা হিসেবে তাদের দায়িত্ব পালন করেন না বা দায়িত্ব পালন সম্পর্কে অবগত থাকেন না।

“আরেকটি বিষয় হয়ে থাকে, অনেক সময় অডিট আপত্তির আলোচনায় সচিব বলে থাকেন তিনি ওই সময় দায়িত্বে থাকেন না। কিন্তু এ কথা বলে দায়িত্ব এড়ানো যাবে না। সচিবের প্রত্যয়টি স্থায়ীরূপে দেখতে হবে। তিনি যখন দায়িত্বে তখন তাকেই হিসাব সম্পর্কিত সব কিছুর জন্য জবাবদিহি করতে হবে।”

সাবেক এই আমলা আরও বলেন, “সচিবরা অতীতের কথা বলেন, বর্তমানের কথাও বলে থাকেন। তবে ভবিষ্যতের পরিকল্পনা বলেন না। ভবিষ্যতের পরিকল্পনা সম্পর্কে আমাদের সবারই ধারণা থাকা উচিত।”

বিভিন্ন অডিট আপত্তি নিষ্পত্তির বিষয়ে মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের (সিএজি) কার্যালয়ের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক আলোচনা করার ওপরও জোর দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে সিএজি মাসুদ আহমেদ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়া প্রসঙ্গে বলেন, “কেবল এই আয়ের মাধ্যম নয়, সবচেয়ে বড় লক্ষ্য হতে পারে নাগরিকদের পানি এবং বিদ্যুৎ সরবরাহের মতো অত্যাবশ্যকীয় সেবা নিশ্চিতকরণ বা দুর্নীতি দমন এবং শাসন ব্যবস্থার উন্নয়নের মতো শর্তগুলো পূরণ।”

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও সংস্থার ৫৪ জন সচিব, অতিরিক্ত সচিব অংশ নেন।

সংসদ সচিব আশরাফুল মকবুলের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন সরকারি হিসাব কমিটির সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী, সাবে প্রধান হুইপ আব্দুস শহীদ, সংসদ সদস্য এ কে এম মাঈদুল ইসলাম, শামসুল হক টুকু।