২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পরিবার নিয়ে পাকিস্তানেই আছেন দাউদ ইব্রাহিম

  • ভারতের ইংরেজী দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমসের খবর

ভারত-পাকিস্তান জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা বৈঠকের আগে নানা বিতর্কের মাঝেই সামনে এল নয়া তথ্য। ১৯৯৩ সালে মুম্বাই বিস্ফোরণের মূল হোতা দাউদ ইব্রাহিম সপরিবারে রয়েছে পাকিস্তানেই। সম্প্রতি এই প্রমাণ পেয়েছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা। দেশটির ইংরেজী দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমসে প্রকাশিত হয়েছে এই খবর।

দাউদের সাম্প্রতিক ছবিও প্রকাশিত হয়েছে ওই দৈনিকে। ২০১২ সালের ওই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ৫৯ বছরের দাউদের মাথায় চুল কমে এসেছে, গোঁফও নেই। সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, শুধু ছবি নয়, ভারতের হাতে এসেছে আরও চাঞ্চল্যকর তথ্যপ্রমাণ। দাউদের স্ত্রী মাহজাবিন শেখের নামে এ বছরের এপ্রিল মাসে করাচির ঠিকানার একটি টেলিফোন বিল ভারতীয় গোয়েন্দাদের হাতে এসেছে। দাউদের পাকিস্তান যোগ আরও স্পষ্ট হয়েছে তিনটি পাক পাসপোর্টের সূত্র ধরে। এ বছরের প্রথম দিকে দাউদের পরিবারের সদস্যদের কয়েকবার এমিরেটসের বিমানে করাচি থেকে দুবাই যাওয়ার তথ্যপ্রমাণও রয়েছে ভারতীয় গোয়েন্দাদের হাতে। পাসপোর্টের নথি, বিমানের যাত্রী তালিকা থেকে এ বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন গোয়েন্দারা। যদিও দাউদ নিজে পাকিস্তানের বাইরে গিয়েছে এমন কোনও নথি গোয়েন্দাদের হাতে আসেনি। আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী দাউদকে আশ্রয় দেয়ার অভিযোগ বারেবারেই অস্বীকার করেছে পাকিস্তান। কিন্তু দাউদের করাচিতে থাকার তথ্য পাকিস্তানের অস্বস্তি বাড়াবে বলেই মনে করা হচ্ছে। সোমবার ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের পাক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সরতাজ আজিজের সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা। ওই বৈঠক হলে দোভাল দাউদকে পাকিস্তানে আশ্রয় দেয়ার প্রসঙ্গটি তুলবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্র উদ্ধৃত করে হিন্দুস্তান টাইমস আরও জানিয়েছে, দাউদ, তার স্ত্রী মেহজাবিন শেখ, ছেলে মঈন নওয়াজ, মেয়েরা অর্থাৎ মাহরুখ, মেহরিন ও মাজিয়া করাচিতেই রয়েছে। দাউদের পুত্রবধূর নাম সোনিয়া। আর মেয়ে মাহরুখের বিয়ে হয়েছে পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার জাভেদ মিয়াদাঁদের ছেলে জুনায়েদ মিয়াদাঁদের সঙ্গে। এপ্রিল মাসে ‘ডি-১৩, ব্লক-৪, করাচি ডেভেলপমেন্ট অথরিটি, স্কিম-৫’ থেকে দাউদের স্ত্রী মেহজাবিনের নামে টেলিফোন বিলও জমা দেয়া হয়েছে। এই ঠিকানা ছাড়াও করাচিতে দাউদের আরও দুটি ঠিকানা রয়েছে। দাউদের সঙ্গীরা অর্থাৎ জাকির সাদ্দিক, জাভেদ ছোটানি, চিকনা এরা সকলেই পাকিস্তানে রয়েছে এবং নিয়মিত দুবাই যাতায়াত করে।