২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফরিদপুরে ২ সংসদ সদস্যের গাড়ি বহরে হামলা ॥ আহত ১৩

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফরিদপুর, ২২ আগস্ট ॥ ফরিদপুরে দুই সংসদ সদস্যের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় চারটি গাড়ি ও একটি ট্রাক ভাংচুর করা হয়। এতে আহত হন কমপক্ষে ১৩ জন। শনিবার ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ফরিদপুর নুরু মিয়া বাইপাসে পিয়ারপুর এলাকায় সকাল পৌনে ১০টায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী ও সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য কামরুন নাহার চৌধুরী গাড়িবহর নিয়ে রাজবাড়ী থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করতে যাওয়ার সময় এ হামলা শিকার হন।

বহরের একাধিক যাত্রী জানান, সকাল সাড়ে আটটার দিকে দুই সংসদ সদস্যের নেতৃত্বে ১০টি মাইক্রোবাস ও আটটি বাসসহ প্রায় ২৪টি গাড়ির বহর রাজবাড়ী থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হয়। গাড়িবহরটি সকাল পৌনে ১০টার দিকে ফরিদপুরের নুরু মিয়া বাইপাসের পিয়ারপুরের গোডাউনের সামনে পৌঁছলে বহরের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক ও দাঁড়িয়ে থাকা একটি পিকআপ ভ্যানের হালকা সংঘর্ষ হয়। এর ফলে ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানের চালক এবং এলাকাবাসী বহরের চারটি বাসে হামলা চালায়। এ সময় বাস থেকে নেমে বহরের যাত্রীরা ট্রাকে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। পরে এলাকাবাসী সংঘবদ্ধ হয়ে বহরের বাসে ব্যাপক হামলা চালায়। এ সময় বহরের ১৩ জন আহত হন। পরে পুলিশ এবং র‌্যাব এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহত ১৩ জনকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে গুরুতর আহত নুরু প্রামাণিককে ভর্তি করা হয়। এছাড়া আহত আফরোজা রাব্বানী, বাবুল শেখ, আজিজুল ম-ল, রবিউল ইসলাম, আব্দুল আউয়াল, মোঃ ইদ্রিছ, আব্দুল মান্নান, মোঃ লাভলু, সুলতান খানসহ ১২ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

গোয়ালন্দের কামরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজ সরকারীকরণের উদ্যোগ নেয়ায় কলেজ কর্তৃপক্ষ ও গোয়ালন্দ আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতের এ উদ্যোগ নেয়। ওই কলেজের অধ্যক্ষ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, কলেজ জাতীয়করণ করা হয়েছে, এজন্য আমরা দুই সংসদ সদস্যকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতের সিদ্ধান্ত নেই। পথে আমাদের ওপর হামলায় আমরা দিশেহারা হয়ে পড়ি।

সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী বলেন, একটি মহৎ কাজে অংশ নিতে গিয়ে সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফরিদপুরে আমার গাড়িবহরে হামলা করা হয়েছে। হামলায় দুটি বাসে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়েছে। আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও দুটি বাস। ফরিদপুর জেলা প্রশাসন নতুন একটি বাস বহরে যুক্ত করায় আমাদের পক্ষে পরবর্তীতে বহরটি নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় যাত্রা করা সম্ভব হয়।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। এদিকে শনিবার দুপুর সোয়া দুইটার দিকে সংসদ সদস্যদের বহরটি টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধুর মাজারে গিয়ে পৌঁছায়। সেখানে দুই সংসদ সদস্য, কামরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজ, গোয়ালন্দ উপাজেলা পরিষদ ও গোয়ালন্দ পৌরসভার পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়।