২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সরকার প্রস্তুত ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই এবং এ রোগে আক্রান্তের চিকিৎসার সুব্যবস্থা রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে প্রস্তুত রয়েছে সরকার। দেশে বর্তমানে ডেঙ্গুর মৌসুম চলছে। প্রতি বছরই এ সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা একটু বেশি থাকে। প্রতিটি সরকারী হাসপাতালেই ডেঙ্গুর জীবাণু নির্ণয় ও চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে। তবে সকলকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। এ বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন গণমাধ্যমকে কাজে লাগানোর জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

শনিবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘ডেঙ্গু প্রতিরোধে করণীয়’ শীর্ষক সভায় তিনি এ কথা বলেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাস্থ্যসচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলামসহ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের ঊর্ধতন কর্মকর্তা, দু’টি সিটি কর্পোরেশনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডেঙ্গু রোগের বাহক এডিস মশা। এই মশার কামড়ে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। এটি সহজে প্রতিরোধ করা সম্ভব। নগরবাসীর উদ্দেশে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে বাসার আশপাশের ঝোপ-জঙ্গল কেটে পরিষ্কার করে ফেলুন। বাসার টবে যেন পানি না জমে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন এবং টবের গোড়া পরিষ্কার রাখুন। বাড়ির আশপাশে পরিত্যক্ত টায়ার, নারিকেলের খোসা, ভাঙ্গা পাত্র বা অন্যান্য বস্তু- যেখানে পানি জমার আশঙ্কা আছে, তা পরিষ্কার করে ফেলুন। বাসার রেফ্রিজারেটরের পেছনের পানির প্লেট পরিষ্কার করুন সব সময়Ñ যেন পানি জমে না থাকে। বাড়ির আশপাশের নালা-নর্দমা পরিষ্কার রাখুন। প্রয়োজনে মশার ওষুধ ছিটানোর ব্যবস্থা করুন। দিনে ঘুমানোর প্রয়োজন হলে মশারি বা কয়েল ব্যবহার করুন। বাসার জানালা বা দরজায় সম্ভব হলে বাড়তি নেট লাগিয়ে নিন। এতে আর যাই হোক মশার প্রকোপ থেকে কিছুটা হলেও রক্ষা পাবেন বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নির্ণয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) সর্বশেষ প্রতিবেদন উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা অনেক কম। চলতি মাসে শনিবার পর্যন্ত রাজধানীতে ২০৬ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগে গত মার্চে ২ জন, এপ্রিলে ২ জন, মে মাসে ১ জন, জুনে ১৫ জন এবং জুলাইয়ে ১৫৬ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়।

নির্বাচিত সংবাদ