২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সামান্য বৃষ্টিতেই হিলি বন্দর গুদামে পানি

  • আমদানি রফতানি ব্যাহত

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ হিলি স্থলবন্দর এলাকায় সুষ্ঠু কোন ড্রেনেজ ব্যবস্থা গড়ে উঠেনি। এর ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই বন্দরে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। গত কয়েকদিনের পানিতে তলিয়ে গেছে বন্দরের অধিকাংশ গুদাম, গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বাসাবাড়ি। এতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে স্থানীয়দের। আর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রাকসহ সকল যানবাহনকে। প্রায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

শনিবার সকালে বন্দর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বন্দরের চারমাথা, সিপি রোড, হাসপাতাল, সোনারপট্টি, চুড়িপট্টি, বাসস্ট্যান্ড ও উপজেলা পরিষদ রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব রাস্তার কার্পেটিং উঠে বড়-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া হাকিমপুর ডিগ্রী কলেজ, বাংলাহিলি পাইলট স্কুল এ্যান্ড কলেজ, বাংলাহিলি মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাংলাহিলি সরকারী বালিকা বিদ্যালয়, অগ্রণী ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ধরন্দা ও সিপি রোডের বেশ কয়েকটি গুদাম এবং শতাধিক বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে জলাবদ্ধাতার সৃষ্টি হয়েছে। প্রায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ায় তাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। আমদানি-রফতানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাকসহ সকল যানবাহনকে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।

হাকিমপুর ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নান জানান, ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতি বছর বৃষ্টির পানিতে কলেজটি ডুকে থাকে। এ কারণে লেখাপড়া মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়। দীর্ঘদিন ধরে পানি জমে থাকায় ভবনও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, বন্দরে প্রতি বছর এই সমস্যা হচ্ছে। সরকার রাজস্ব পেলেও বন্দরের রাস্তাঘাট উন্নয়নে কোন গুরুত্ব দিচ্ছে না। বন্দরের কাস্টমস সহকারী কমিশনার সাইফুর রহমান জানান, বৃষ্টিতে বন্দরের রাস্তা-ঘাট তলিয়ে যাওয়ায় আমদানি-রফতানি কার্যক্রম কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। ব্যবসায়ীরাও এ কারণে পণ্য কম আমদানি-রফতানি করছেন। এই বন্দর দিয়ে বেশিরভাগ গম, ভুট্টা, ভুসি, খৈল আসে। বেহাল রাস্তা-ঘাটের কারণে পণ্যবাহী ট্রাক ফেঁসে যাওয়ায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আজাহারুল ইসলাম জানান, অল্প বৃষ্টিতেই প্রতি বছর স্থলবন্দরের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাগুলো ডুবে যায়। এসব রাস্তায় পানি জমে থাকায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এতে সরকারের রাজস্ব আদায়ও ব্যাহত হয়। স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হওয়ায় নাগরিকদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

ইস্টার্ন ভার্সিটিতে ভর্তি মেলা

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি’তে শুরু হলো ৩ দিনব্যাপী (২২ থেকে ২৪ আগস্ট) ফল সেমিস্টার এ্যাডমিশন ওপেন হাউস (ভর্তি মেলা)। সকাল ৯ টায় শুরু হয়ে মেলা চলবে প্রতিদিন বিকেল ৫টা পর্যন্ত। মেলার উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুর রব। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হান্নান চৌধুরী, আইন অনুষদের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. বোরহান উদ্দিন খান। -বিজ্ঞপ্তি