১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পর্যটক আকর্ষণের চেষ্টা দক্ষিণ কোরিয়ার

মার্স ভাইরাসের কারণে দক্ষিণ কোরিয়ায় পর্যটন শিল্পে ধস নামে। গত জুন মাসে পর্যটকের সংখ্যা কমে যায় ৪০ শতাংশ। এখনও অবস্থার উন্নতি হয়নি। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশটির অর্থনীতি। তাই পর্যটকদের আকর্ষণ করার জন্য দক্ষিণ কোরিয়া শুল্কমুক্ত কেনাকাটার সুবিধা প্রদানের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। বিশেষ করে প্লাস্টিক সার্জারি, লাইপোসাকশনসহ বিভিন্ন চিকিৎসার ক্ষেত্রে পর্যটকদের জন্য বিশেষ শুল্কছাড়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে দেশটি। এর কারণ দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বে কসমেটিক সার্জারির রাজধানী হিসেবে পরিচিত। ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অব এ্যাসথেটিক প্লাস্টিক সার্জারির তথ্য অনুযায়ী গত বছর বিশ্বে প্রায় ৪০ লাখ লোক এ সেবা গ্রহণ করেছিল, যার প্রায় ৫ শতাংশই করা হয় দক্ষিণ কোরিয়ায়।

শুল্কছাড়ের কারণে দেশটির পর্যটকের সংখ্যা বৃদ্ধির মাধ্যমে অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে বলেই প্রত্যাশা করছেন দেশটির সরকারী কর্মকর্তারা।

নিম্ন গতিতে মালয়েশিয়ার অর্থনীতি

মালয়েশিয়ার অর্থনীতিতে নাজুক মালয়েশিয়ার অর্থনীতিতে নাজুক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বিগত দুই বছরের মধ্যে সবচেয়ে শ্লথগতিতে প্রসারিত হচ্ছে দেশটির অর্থনীতি। চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৪ দশমিক ৯ শতাংশ, যা গত বছরের একই সময়ের ৬ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধির তুলনায় অনেকটাই কম। রফতানি হ্রাস পাওয়া এবং সেসঙ্গে ব্যক্তিগত ভোগ ব্যয় হ্রাসের কারণেই প্রবৃদ্ধির এই নিম্নগতি। বর্তমান এই শ্লথগতির সঙ্গে আন্তর্জাতিক তেলের মূল্যর ধারাবাহিক হ্রাস পাওয়া দেশটির ভবিষ্যত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি নিয়েও শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তাই দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এ তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশটি এখন কোণঠাসা অবস্থার মধ্যে রয়েছে। এজন্য মুদ্রার মান ও রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়ে সঙ্কটে থাকা দেশটির নীতিনির্ধারকদের জন্য অর্থনীতির এ শ্লথগতি নতুন সমস্যার সৃষ্টি করেছে।

অর্থনীতি ডেস্ক