২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাক-ভারত নিরাপত্তা বিষয়ক বৈঠক বাতিল

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ভারত-পাকিস্তান নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ের (এনএসএ) বৈঠক ভেস্তে গেছে। আজ রবিবার দিল্লীতে বৈঠকটি হওয়ার কথা ছিল। সারতাজ আজিজ ভারত যাচ্ছেন না বলে শনিবার জানায় পাকিস্তান সরকার। ইসলামাবাদ জানায়, দিল্লীর শর্ত মেনে বৈঠক সম্ভব নয়। শনিবার দিনভর এ বৈঠক নিয়ে চলে নাটক। সিমলা চুক্তি এবং উফা সমঝোতা মেনে বৈঠকে রাজি কিনা তা জানাতে পাকিস্তানকে শনিবার রাত বারোটা পর্যন্ত সময় দিয়েছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। অবশ্য আগে থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল, পাকিস্তান তা মানতে রাজি নয়। ফলে, বৈঠক বাতিল হওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণাই কার্যত শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা ছিল। খবর এনডিটিভি ও ডন অনলাইনের।

রবিবার দিল্লীতে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সারতাজ আজিজ বৈঠকে বসবেন বলে ঠিক হয়। কিন্তু শনিবারও দিনভর বৈঠকের আলোচ্যসূচী নিয়ে চলে দু’দেশের বিতর্ক।

পাকিস্তানের দাবি ছিল, এনএসএ বৈঠকে কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা চায় তারা। ভারতের সাফ কথা, সন্ত্রাস ছাড়া অন্য বিষয়ে আলোচনা নয়।

হুরিয়ত নেতাদের কাশ্মীরের প্রতিনিধি স্বীকৃতি দিয়ে এনএসএ বৈঠকের সময় তাদের সঙ্গে আলোচনা চায় ইসলামাবাদ। দিল্লী স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিল, সিমলা চুক্তি মেনে কাশ্মীর ইস্যুতে কোন তৃতীয় পক্ষকে মেনে নেয়া হবে না। শনিবার দুপুর দেড়টা নাগাদ ইসলামাবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেন সারতাজ আজিজ। বিকেল চারটার দিকে দিল্লীতে তার উত্তর দেন সুষমা স্বরাজ।

দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের আগেই দু’দেশ একে অপরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে। পরিস্থিতি যখন এতটাই তিক্ত তখন আলোচনায় কী লাভ হবে? ওয়াগা সীমান্তের দু’পারেই যখন এই প্রশ্ন উঠছে তখনই পাকিস্তানকে চরম সময়সীমা কেন দিলেন সুষমা স্বরাজ। সারাদিনের এই নাটকীয় পরিস্থিতির জন্য সরকারের হোমওয়ার্কের অভাবকেই দায়ী করেছে কংগ্রেস।

কূটনৈতিক মহলের মতে পাক সেনা, আইএসআই আলোচনা চাইছে না বলেই নওয়াজ শরীফ কাশ্মীর ইস্যু খুঁচিয়ে তুলে পালাবার পথ খুঁজতে বাধ্য হচ্ছেন। উদমপুর, গুরুদাসপুরে জঙ্গী হামলা, নিয়ন্ত্রণরেখায় পাক সেনার লাগাতার অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘনের পর আলোচনার টেবিলে যাওয়া না যাওয়া নিয়ে দিল্লীর ওপরও চাপ রয়েছে। জটিল এই পরিস্থিতিতে কথাবার্তার রাস্তা বন্ধ হওয়ার ফলে দুরাশাই রয়ে গেল শান্তির আশা।