২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বঙ্গবন্ধু আমাদের হাজার বছরের আত্মপরিচয় ফিরিয়ে দেন ॥ খায়রুল হক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক বলেছেন, বিচার বিভাগ নিয়ে অনেকেই সমালোচনা করেন। তবে মনে রাখতে হবে মাত্র সাড়ে ১১ হাজার বিচারককে ৩০ লাখ মামলার বোঝা নিয়ে চলতে হচ্ছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের হাজার বছরের আত্মপরিচয় ফিরিয়ে দিয়েছিলেন, ড. আবুল বারকাত তার গ্রন্থে নতুন করে সেটি মনে করিয়ে দিয়েছেন। বৈদেশিক ঋণ শুধু আমাদের প্রয়োজন রয়েছে এমটি নয়, তাদেরও দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন অডিটরিয়ামে অর্থনীতিবিদ ড. আবুল বারাকাত রচিত ‘বঙ্গবন্ধু-সমতা-সাম্রাজ্যবাদ’ শীর্ষক বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন, লেখক মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের ঐতিহাসিক বিকাশের যে দিকটি তুলে ধরেছেন তা সবার জানা প্রয়োজন। অধ্যাপক বারকাত তার বইটিতে বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে আমাদের দেশের যে পরিবর্তন আসত তার যৌক্তিক প্রোজেকশন তুলে ধরেছেন। বইটি বহুদিক দিয়ে সময়োপযোগী। তিনি বলেন, একটি অনুষ্ঠানে ড্যান মজিনা বাংলাদেশ নিয়ে সমালোচনা করছিল। বাংলাদেশ তেমন কোন উন্নয়ন করতে পারছে না। আমি তাকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলাম, তোমরা ৪৩ বছরে যে উন্নয়ন করেছিলে তার চেয়ে বেশি উন্নয়ন আমরা করতে পেরেছি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, শেখ মুজিব একই সঙ্গে একজন ব্যক্তি ও দর্শন। বাংলাদেশে রাজনীতি করতে হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করতে হবে। তার কথা বলতে হবে। তাকে বাদ দিয়ে এদেশে রাজনীতি করা যাবে না। বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে রাজধানীর একটি অনুষ্ঠানে বিতরণ করা বিরিয়ানির প্যাকেটে বঙ্গবন্ধুর ছবি ব্যবহার করার কড়া সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, এটা নির্লজ্জের বাংলাদেশ, লজ্জার শোকসভা। নেতাদের খাই খাই স্বভাব বাদ দিতে হবে।

ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু জনগণের কথা বলতেন, রেন্ট-সিকিং অর্থনীতির বিশ্বদাপটের যুগে তাঁর মতো নেতৃত্বের অভাব যে অপূরণীয় ক্ষতিসাধন করেছে, যা এ বইয়ে বিশ্লেষণের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে।

অধ্যাপক ড. আশরাফ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রকাশনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন মেজর জেনারেল (অব.) কে এম সফিউল্লাহ বীরউত্তম, অধ্যাপক মাহফুজা খানম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ড. শফিক উজ জামান। এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতেই অতিথিদের আসন গ্রহণের পর সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। পরে ১৫ আগস্টের সকল শহীদ এবং জাতীয় চার নেতার স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতাও পালন করা হয়। বইটির ৮টি অধ্যায়ে মৌলিক চিন্তায় প্রকাশিত এ গ্রন্থের লেখক প্রথাগত গবেষণার গ-ির বাইরে এসে চিন্তার নতুন এক জগৎ উন্মোচন করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু ‘বেঁচে থাকলে’ আজকের বাংলাদেশের দৃশ্যপট কেমন হতো? কোথায় পৌঁছত বাংলাদেশ? সাম্র্রাজ্যবাদী বিশ্ব-প্রভুত্বের আজকের যুগে পৃথিবীর একক কোন দেশে বঙ্গবন্ধুর উন্নয়ন-প্রগতিদর্শন বাস্তবায়ন সম্ভব কি? এসব প্রশ্নের নির্মোহ বিশ্লেষণভিত্তিক উত্তর খোঁজাও হয়েছে গ্রন্থটিতে। ‘সৃজনশীল বই পড়ুন, আলোকিত হোন’ সেøাগানকে সামনে রেখে মৌলিক চিন্তার প্রকাশনায় অঙ্গীকারাবদ্ধ ‘মুক্তবুদ্ধি প্রকাশনা’ কর্তৃক প্রকাশিত প্রথম বই এটি। ড. আবুল বারকাত প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার। বইটরি মূল্য ধরা হয়েছে ৩০০ টাকা, আর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বিক্রি হয়েছে ১৫০ টাকায়।