১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দাউদকান্দিতে শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ

দাউদকান্দিতে শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ

নিজস্ব সংবাদদাতা, দাউদকান্দি ॥ কুমিল্লার হোমনায় নিলুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ। আজ রবিবার দুপুরে উপজেলার পঞ্চবটি নামক স্থানে এ অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। জানা যায়, গত শনিবার বিকালে হোমনা উপজেলা সদরের আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সঙ্গে নিলুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের গ্রীষ্মকালিন ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। ওই খেলায় নির্র্দিষ্ট সময়ের মাত্র কয়েক মিনিট আগে রেফারীর বিতর্কিত পেনাল্টি কিকের সিদ্ধান্ত নিয়ে খেলোয়ারদের মধ্যে বাক বিতন্ডার এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনা নিয়ন্ত্রন না করে নিলুখী স্কুলের খেলোয়ারদের উপর ক্ষিপ্ত হয় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলোয়ার ও শিক্ষকগণ। এই ঘটনায় একদিন পার হয়েও কোন রকম সমাধান না পাওয়ায় নিলুখী স্কুল কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে পঞ্চবটি নামক স্থানে রাস্তা অবরোধ করে। এতে করে রাস্তার দু’পাশে দীর্ঘ যাজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জামিল, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান মোল্লা, থানা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক একেএম ছিদ্দিকুর রহমান আবুল ও থানা অফিসার ইনর্চাজ মোঃ কামরুজ্জামান সিকদার পিপিএম ঘটনাস্থলে পৌছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের বিচারের আশ^াস দিলে তারা অবরোধ তুলে নেয়। প্রত্যক্ষদর্শী নিলুখী স্কুলের সিনিঃ শিক্ষক মোসাঃ রাশিদা আক্তার জানায়, নজরুল স্যার, ইয়াকুব স্যার ও রাহিদ হাসান দাদন স্যারের নেতৃত্বে আমাদের শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করা হয়। তারা ছাত্রদেরকে মারধর করে আহত করেছে। নজরুল সাহেব আমাদের স্কুলের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র শাহ জালালের টুটি চেপে ধরে হত্যার চেষ্ঠা করে। অভিযুক্ত শিক্ষক নজরুল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানায়, কে কি বলল না বলল সেটা দেখার বিষয় নয়। বিচারেরই দেখা যাবে। হোমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জামিল জানান, রেফারীর সিদ্ধান্ত নিয়ে যে খেলাটি বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে, সেটি পুনরায় অন্য একটি মাঠে অনুষ্টিত হবে। মাঠের বাইরে কোন ঘটনা ঘটলে বা ঘটে থাকলে ভিকটিম থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নিবে। যে শিক্ষকগণ এমন আচরণ করেছে তাদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেলে রেফারী ও শিক্ষকদের শোকজ করা হবে।