২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জঙ্গি অর্থায়নের দায়ে ৩ আইনজীবীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি

জঙ্গি অর্থায়নের দায়ে ৩ আইনজীবীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁশখালী॥ জঙ্গি অর্থায়নের দায়ে আটক সুপ্রীম কোর্টের ৩ আইনজীবি আজ (রবিবার) সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ৩ টা পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে বাঁশখালী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেছে। এর আগে গত বুধবার ১৯ আগষ্ট আটক আইনজীবিদের বিরুদ্ধে ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিল এই আদালত। রিমান্ড শেষে রবিবার এই ৩ আইনজীবি বাঁশখালী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ সাজ্জাদ হোসেনের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে। এ ঘটনায় বিবাদীপক্ষের আইনজীবিরা জামিন আবেদন ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে হাটহাজারী জঙ্গি গ্রেফতার ঘটনায় শোন এরেস্ট দেখিয়ে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন শুনানী চট্টগ্রাম কোর্টে রয়েছে মর্মে দেখিয়ে আদালত থেকে সময় প্রার্থনা করে। আদালত শুনানী শেষে উভয়ের আবেদন নামঞ্জুর করে ৩ আইনজীবিকে জেল কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। এদিকে বিবাদীপক্ষের আইনজীবি চট্টগ্রাম জেলা জজ আদালতে সাবেক পিপি আবদুচ ছাত্তার জনকন্ঠকে অভিযোগ করে বলেন, জবানবন্দি র‌্যাবের পক্ষ থেকে জোর পূর্বক নেয়া হচ্ছে। যা সম্পূর্ণ আইন পরিপন্থী।

কোর্ট ও র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন “শহীদ হামজা ব্রিগেড”কে ব্যাংকের মাধ্যমে অর্থ লেনদেনের অভিযোগে র‌্যাব-৭ ধানমন্ডি নিজ কার্যালয় থেকে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা ও তার দুই সহযোগী হাছানুজ্জামান লিটন ও মাহফুজ চৌধুরী বাপনকে আটক করে। আটকের পর বাঁশখালীর সাধনপুরের লটমনি পাহাড়ে জঙ্গি আস্তানা ও গোলাবারুদ উদ্ধারের ঘটনায় তাদেরকে গ্রেফতার দেখিয়ে বাঁশখালী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে র‌্যাব। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। রিমান্ড শেষে গতকাল রবিবার বাঁশখালী সিনিয়র ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে এই ৩ আইনজীবি। জবানবন্দি প্রদান শেষে শুনানীতে সরকার পক্ষে অংশগ্রহণ করেন আদালতের কৌশুলী অতিরিক্ত পিপি এডভোকেট বিকাশ রঞ্জন ধর ও বাঁশখালী বার কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আ.ন.ম. শাহাদত আলম। অপরদিকে আসামীপক্ষে সাবেক চট্টগ্রাম মহানগর পিপি এডভোকেট আবদুচ ছাত্তার ও জেলা পিপি এডভোকেট কফিল উদ্দিনসহ অর্ধশতাধিক আইনজীবি শুনানীতে অংশ নিয়ে জামিন আবেদন করেন। বিজ্ঞ আদালত জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

সরকারী কৌশুলী অতিরিক্ত পিপি এডভোকেট বিকাশ রঞ্জন ধর জানান, জঙ্গি অর্থায়নে ব্যারিস্টার শাকিলা ও তার দুই সহযোগী ১৬১ ধারায় র‌্যাবের কাছে জবানবন্দিতে অর্থ লেনদেনের কথা স্বীকার করেছে। তাই এ ঘটনায় তারা সরাসরি জঙ্গি অর্থায়নে জড়িত তা নিঃসন্দেহে বলা যায়। তাছাড়া একটি মহল দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে বিনষ্ট করতে দেশীবিদেশী অর্থায়নে জঙ্গিবাদ ছড়াচ্ছে এদেশে। সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবি এ ধরনের ঘটনায় জড়িয়ে পড়ায় উদ্বেগজনক। তাছাড়া এই তিন আইনজীবি বিভিন্ন ব্যাংকের একাউন্টের মাধ্যমে “শহীদ হামজা বিগ্রেডে”র পরিচালক মনিরুজ্জামান ডনের মাধ্যমে বিভিন্ন জঙ্গিদের অর্থায়ন করত।

আসামীপক্ষের আইনজীবি সাবেক চট্টগ্রাম মহানগর পিপি আবদুচ ছাত্তার জানান, আমার মক্কেল রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। র‌্যাব জোর পূর্বক জবানবন্দি প্রদান করাচ্ছে আদালতে। যার নমুনা আপনারা সাংবাদিকরা নিজেরাই দেখতেছেন। কেননা জবানবন্দি প্রদানের সময় আদালত প্রাঙ্গন ও ম্যাজিষ্ট্রেট কার্যালয়ের সামনে র‌্যাব পুলিশের কড়া নজরদারি ছিল এবং আসামীদের র‌্যাব পাহারায় গাড়িতে বসিয়ে রেখে পর্যায়ক্রমে ম্যাজিষ্ট্রেটের খাস কামরায় প্রেরণ করছে। যা সম্পূর্ণ আইন পরিপন্থী। আদালত আমাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করলেও এ বিষয়ে আইনী লড়াই চলবে।

নির্বাচিত সংবাদ