১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভারতে ‘বন্ধন ব্যাংক’ নামে বাঙালির প্রথম ব্যাংকের যাত্রা শুরু

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ভারতের সবগুলো রাজ্যের নামে ব্যাংক থাকলেও এতোদিন বাংলার নামে কোনো ব্যাংক ছিল না। তবে এবার সরাসরি বাংলার নামে হয়তো ‘ব্যাংক অব বেঙ্গল’ হচ্ছে না; কিন্তু বাঙালির ব্যাংক হিসেবে যাত্রা শুরু করেছে ‘বন্ধন ব্যাংক’। এ ব্যাংকের অন্যতম উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠা হিসেবে রয়েছেন বাংলাদেশের ছেলে চন্দ্রশেখর ঘোষ। ব্যাংকটির পরিচালনমন্ডলীতেও রয়েছে বাঙালি প্রাধান্য। ১০ সদস্যের বোর্ডে ছয়জনই বাঙালি। রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে এ ব্যাংকটির উদ্বোধন করেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। বিশেষ আমন্ত্রণে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ড. আতিউর রহমান। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রথম বছরেই বাংকটিতে ১ কোটি গ্রাহক করার পরিকল্পনা নিয়ে ৬০০ শাখা খোলার ইচ্ছা রয়েছে কর্তৃপক্ষের। তিন বছর অর্থাৎ ২০১৮ মধ্যেই শেয়ারবাজারে নথিভুক্ত হওয়ার পরিকল্পনা করেছে বন্ধন ব্যাঙ্ক।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বন্ধনকে খুব অল্প সময়ের মধ্যে জনপ্রিয় করে তুলতে একাধিক পদক্ষপ নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। প্রাথমিকভাবে দেশজুড়ে ব্যাংকের প্রায় ৬০০টি শাখা খোলা হবে । এর মধ্যে রাজ্যে ১৪৭টি এবং কলকাতাতেই খোলা হবে ৩৮টি শাখা। প্রথম পর্যায়ে ২৫০টি এটিএম খোলার পরিকল্পনাও নিয়েছে বন্ধন ব্যাংক।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর বন্ধন ব্যাংককে অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি এবং গ্রীন ব্যাংকিং এ মনোনিবেশ করারও আহ্বান জানান। এসময় তিনি কীভাবে অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি এবং মানিটারি পলিসি বাংলাদেশের আর্থিক স্থিতিশীলতা অর্জনে সহায়ক হয়েছে তার উপরও আলোকপাত করেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, জনসাধারণকে প্রচলিত ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানে যেতে উৎসাহিত করার পাশাপাশি ব্যাংকসমূহের উচিত সব ধরণের জনগণ বিশেষতঃ প্রান্তিক, দরিদ্র এবং ব্যাংকিংসুবিধা বঞ্চিত গ্রামীণ জনগণের দোরগোড়ায়ও তাদের সেবা পৌঁছে দেয়া। এর মাধ্যমে আমরা ব্যাংকিং আওতামুক্ত জনগণকে প্রচলিত আর্থিক কাঠামোর মধ্যে আনতে পারি যা আর্থিক অন্তর্ভুক্তি এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করবে।