২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচের ব্যস্ততা শুরু হয়ে যাবে আর কিছুদিন পরেই। সময় খুব সীমিত। সবেমাত্র ঘরোয়া ফুটবলের পেশাদার আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ শেষ করেছেন ফুটবলাররা। কিন্তু দম ফেলার ফুসরত নেই। শনিবার লীগ শেষ করার পরই ২৩ ফুটবলার রবিবার অনুশীলনে নেমে পড়েছেন। আগামী ৩ সেপ্টেম্বর ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। সে জন্য আগেই ২৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। রবিবার বিকেলে জাতীয় দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবুর কাছে ফুটবলাররা রিপোর্ট করেন। এরপর মতিঝিলে অবস্থিত কৃত্রিম টার্ফে অনুশীলন করেন আবাসিক ক্যাম্পে থাকা ২৩ ফুটবলার। আগামী ২৯ আগস্ট মালয়েশিয়ার বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। ২৬ আগস্ট রাতেই সেখানে যাবে দল। পরদিনই (৩০ আগস্ট) সেখান থেকে অস্ট্রেলিয়ার পার্থের উদ্দেশে রওনা হবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। আজ বিকেল ৪টা থেকে আনুষ্ঠানিক অনুশীলন শুরু হবে শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব মাঠে।

এতদিন খেলার মধ্যেই ছিলেন জাতীয় দলের ফুটবলাররা। অনুশীলনের চেয়ে প্রতিযোগিতা অনেক বেশি কার্যকরী। তাই প্রস্তুতির ক্ষেত্রে কোন ঘাটতি নেই। এবার কৌশলগত অনুশীলন। ‘সকারুস’ খ্যাত শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই প্রথম মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। তবে তাদের শক্তিমত্তা কিংবা দুর্বলতা বিশ্লেষণ করে সেভাবে অনুশীলনের জন্য সুযোগ থাকছে মাত্র ৪ দিন। ২৬ আগস্ট রাতেই মালয়েশিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করতে হবে জাতীয় দলকে। কারণ ২৯ আগস্ট প্রীতি ম্যাচ রয়েছে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। এ কারণে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে ভাল একটি প্রস্তুতিও হয়ে যাবে। গত ১৭ আগস্টই বাংলাদেশে ফিরেছেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের দিন তিনি শুধু দর্শক হিসেবেই থাকবেন। ডাগআউটে থাকতে পারবেন না এবং সাইডলাইন থেকে নির্দেশনা দিতে পারবেন না শিষ্যদের। কারণ ফিফার শাস্তির খ—গ ঝুলছে তার মাথার ওপরে।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মুখোমুখি হওয়ার জন্য মাঝে মাত্র ৪ দিন সময় পাবেন ফুটবলাররা। এর মধ্যে একটা দিন পেরিয়ে যাবে পার্থে পৌঁছতেই। তাই মাত্র তিনদিন সময় থাকছে অস্ট্রেলিয়ার পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার জন্য। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় দলের সম্ভাব্য সব খেলোয়াড়দেরই ভিসা করা হয়েছে। এমনকি ইনজুরির কথা মাথায় রেখে অতিরিক্ত ৫টি ভিসাও করে রাখা হয়েছে। ঢাকায় বিশ্বকাপ বাছাইয়ের সর্বশেষ ম্যাচে যে বাংলাদেশ দল অংশ নিয়েছিল তাদের বেশিরভাগকে নিয়েই গড়া হয়েছে দল। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ঢাকার দুই ম্যাচের দল থেকে অস্ট্রেলিয়া সফরে বাদ পড়েছেন আমিনুর রহমান সজীব, শাহেদুল আলম শাহেদ, তৌহিদুল আলম সবুজ, কেস্ট কুমার, ওয়াহেদ আহমেদ ও গোলরক্ষক মাজহারুল ইসলাম হিমেল। দলে ফিরেছেন নাসির উদ্দিন চৌধুরী, শহীদুল আলম সোহেল, আতিকুর রহমান মিশু, তকলিস আহমেদ, ইমন মাহমুদ বাবু ও মোহাম্মদ লিঙ্কন।

পার্থে অস্ট্রেলিয়ার মোকাবেলা করেই আবার দেশে ফিরে আন্তর্জাতিক ম্যাচ। ৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আরেক শক্ত প্রতিপক্ষ জর্দানের বিপক্ষে অংশ নেবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। ওই ম্যাচ পর্যন্তই ক্রুইফের সঙ্গে বাফুফের চুক্তি আছে। এ ম্যাচের পরই ক্রুইফের পরবর্তী ভাগ্য নির্ধারিত হবে। আরও দু’দিন আগেই জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে আবাহনী লিমিটেড ও শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাবের মধ্যে খেলাটি পিছিয়ে যাওয়ার কারণে আবাসিক ক্যাম্পও দেরি করে শুরু হয়েছে। এবার সর্বশেষ প্রস্তুতির পালা।