২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পেঁয়াজের দাম এক লাফে কেজিপ্রতি ৯০ টাকা

  • মাত্র ৩ দিন আগেও ৫-৬ টাকা ছিল ;###;এক মাসে দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ হঠাৎ করে পেঁয়াজের বাজার বেসামাল। মাত্র তিন দিনে কেজি প্রতি দাম বেড়েছে ৩০-৩২ টাকা। দেশী বা ভারতীয়। বাজারে সব পেঁয়াজের ঝাঁঝই এখন এক। গড়ে ৯০-৯২ টাকা প্রতি কেজির খুচরা দাম। সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এই চিত্র দেখা যায়। অন্যদিনে বাজার মনিটরিংয়ে নিয়োজিত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ’র (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী সোমবার বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল সর্বোচ্চ ৮৫ টাকা আর দেশী পেঁয়াজের দাম ছিল সর্বোচ্চ ৯০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৫৫-৬০টাকা। অথচ রমজান মাসে ভারতীয় ও দেশী পেঁয়াজ ৩৬-৪৫ টাকা দরে বিক্রি হয়। এক মাসের ব্যবধানে দ্বিগুণের বেশি দাম।

সামনে ঈদ-উল-আযহা। তখন পেঁয়াজের চাহিদা আরও বাড়বে। তাই ক্রেতারা বেশি উদ্বিগ্ন। খুচরা বিক্রেতারা বলছে, তাদের কেনা বেশি। তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। আড়তদাররা বলছেন, ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে দেশীয় পেঁয়াজের ওপরও। ভারতীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধিকে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ বলছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তবে মন্ত্রণালয়ের দাবি পেঁয়াজের দাম অল্প সময়ের মধ্যে কমে আসবে। বাণিজ্য সচিব হেদায়েতুল্লা আল মামুন (এন.ডি.সি) জনকণ্ঠকে বলেন, যেহেতু আমাদের মজুদ পর্যাপ্ত নয়, তাই ভারতের বিকল্প দেশ থেকে পেঁয়াজ আমাদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এবার চীন ও মিসর থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে, যা আগামী কয়েকদিনের মধ্যে দেশে আসবে। এতে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে বাজার স্বাভাবিক হবে বলেও জানান বাণিজ্য সচিব। এদিকে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বলছে, তারা নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছে। ক্রেতাসাধারণ যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় এজন্য তারা বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালানোর কথা ভাবছে। যদি কাউকে পেঁয়াজ নিয়ে মনোফলি ব্যবসা করতে পাওয়া যায় তাদের জেল-জরিমানা ও পেঁয়াজ জব্দ করা হবে। সোমবারই দেশের বিভিন্ন জেলায় অভিযান চালানো হয় বলেও দাবি করেন টিসিবির সহকারী পরিচালক (ভোক্তা অধিকার) আব্দুল্লাহ আল মাসুম।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর কাওরান বাজারে পেঁয়াজের আড়তে এক পাল্লা (৫ কেজি) পেঁয়াজ কেনেন ৪২০ টাকায় মগবাজারের গৃহিণী শামসুন্নাহার ডলি। তিনি জনকণ্ঠকে জানালেন, এক সপ্তাহ আগে একপাল্লা পেঁয়াজ কিনেছিলেন মাত্র ২৫৫ টাকায়। বাজারে হঠাৎ করে পঁয়াজের দাম কেন বাড়ছে তা বলতে পারবেন না বলে উল্লেখ করে হাতিরপুল কাঁচাবাজারের পেঁয়াজ বিক্রেতা নিজাম সরকার বলেন, পাইকারি বাজার থেকে বেশি দামে কিনেছেন বলে তিনিও বেশি দামে বিক্রি করছেন। তার দোকানে প্রতিকেজি দেশী পেঁয়াজ বিক্রি করছেন ৯২ টাকায়। আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৯০ টাকায়। তবে, পাইকারদের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ‘শুনেছি ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। তাই এখানেও দাম একটু বাড়তি।’ এভাবে পেঁয়াজের দাম আরও বাড়তে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘২/৪ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের কেজি ১০০ টাকা হতেও পারে।’

কাওরান বাজারের মায়ের দোয়া স্টোরের খুচরা বিক্রেতা রবিন ভ্রাম্যমাণ আদালতের কর্মকর্তা ভেবে প্রথমে খুচরা প্রতি কেজি ৮০ টাকা বললেও সাংবাদিক পরিচয় জানার পর বলেন, প্রতি কেজি ৯০ টাকায় বিক্রি করছেন। তিনি জানালেন, কেনা বেশি বলে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তার দুই দোকান পরের শাহপরাণ স্টোরের বিক্রেতা হাবিব জানায়, তিন দিন আগেও সে ৬০-৬৫ টাকায় বিদেশী ও দেশী পেঁয়াজ বিক্রি করেছে। এখন যে কোন পেঁয়াজই ৯০ টাকা কেজি। এবার পাশের মার্কেটে পেঁয়াজের আড়তে গিয়ে জানা যায়, হঠাৎ করেই ভারতের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। এতে দেশে পেঁয়াজ আমদানি কমেছে। যার কারণে বাজারেও দাম বেড়েছে। এসব তথ্য দেন পেঁয়াজের আড়ত মেসার্স কুতুরপুর বাণিজ্যালয়ের বিক্রয়কর্মী হায়দার আলী। তিনি বলেন, বাজারে এখন যে সব পেঁয়াজ আসছে তা কমপক্ষে একমাস আগের কেনা। গত রাতেও তাদের ৬ ট্রাক মাল এসেছে উল্লেখ করে হায়দার আলী বলেন, তবু দাম কমছে না। সরকার কোন ব্যবস্থা না নিয়ে এই দাম আরও বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা তার। লাকসাম বাণিজ্যালয় নামের আরেক আড়তের বিক্রয়কর্মী নূর হোসেন জানান, পেঁয়াজের দাম দ্রুত সময়ে কমে আসবে কারণ আমাদের দেশী পেঁয়াজ পর্যাপ্ত পরিমাণে মজুদ রয়েছে। পেঁয়াজ পঁচনশীল পণ্য। তাই কেউ এটি ধরে রাখতে পারবে না।

এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন বাজার আর পাড়া মহল্লার মুদি দোকানে পেঁয়াজের দামের তারতম্য বেশ দেখা যাচ্ছে। যেসব খুচরা বিক্রেতা রবিবার পেঁয়াজ কিনেছেন তারা ৯০-৯২ টাকা দরে বিক্রি করছেন। অন্যদিকে যারা বৃহস্পতিবার অথবা শুক্রবার পেঁয়াজ কিনেছেন তারা একটু কম দামে বিক্রি করতে পারছেন। যেমন বোসাবো কাঁচাবাজারে অনেক বিক্রেতা ৮৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। এসব খুচরা বিক্রেতা পাইকারি বাজার থেকে বৃহস্পতি ও শুক্রবার পেঁয়াজ কিনেছেন। বাসাবো কাঁচাবাজারে ক্রেতা লোকমান হোসেন বলেন, কোরবানির ঈদ আসার আগেই পেঁয়াজের যে দাম দেখছি। না জানি ঈদে এবার কত টাকা বাড়ে? ঈদের আগে অন্যান্য মসলার দাম আরও বাগতে পারে বলে আশঙ্কা তার।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ॥ টিসিবির সহকারী পরিচালক (ভোক্তা অধিকার) আব্দুল্লাহ আল মাসুম জানান, সোমবার শরীয়তপুর, গাজীপুর, লালমনিরহাট ও রাজশাহী মহানগরে টিসিবির ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালায়। এসব এলাকায় ১৯ প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর ৩৭, ৩৮, ৪৩, ৫১ ধারায় মোট ৮৮ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা করে আদালত।