২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

৩৫তম বিসিএস লিখিত পরীক্ষার ৪১৯ প্রার্থীর আবেদন বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আবেদনপত্র জমা না দেয়া ও ভুলের কারণে ৩৫তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার প্রার্থীদের মধ্যে ৪১৯ জনের প্রার্থিতা বাতিল করেছে পিএসসি। সোমবার পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) আ ই ম নেছার উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে অনুষ্ঠিতব্য বিসিএসের লিখিত পরীক্ষায় এসব প্রার্থী অংশগ্রহণ করতে পারবেন না।

পিএসসি জানিয়েছে, আবেদনপত্রে গুরুতর ত্রুটি, অসংলগ্নতা ও অসম্পূর্ণতার কারণে মোট ৪১৯ জনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। এসব প্রার্থীকে কেন্দ্রে না আসার জন্য বলেছে পিএসসি। এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি পিএসসির ওয়েবসাইটে () পাওয়া যাচ্ছে। বিপিএসসি ফরম-২ জমা না দেয়ায় ৩৮৩ জন, ডাকযোগে আবেদন পাঠানোয় পাঁচজন, ফি জমা না দেয়া সংক্রান্ত ভুলের কারণে একজন, পুরাতন ফরম জমা দেয়ায় তিনজন, ফরমে স্বাক্ষর না করায় ২০ জন, বিজ্ঞাপনের শর্ত না মানায় দু’জন, জন্ম তারিখ ভুল থাকায় চারজন ও আবেদনপত্র দেরিতে জমা দেয়ায় একজনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। এদিকে পিএসসি জানিয়েছে, এবার লিখিত পরীক্ষায় ১০টি বিষয়ে ক্যালকুলেটর ব্যবহারের সুযোগ পাবেন প্রার্থীরা। সময়সূচী প্রকাশের সময় যদিও বরাবরের মতো ক্যালকুলেটর ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক জানিয়েছেন, আবশ্যিক বিষয় গাণিতিক যুক্তি, গণিত, ফলিত গণিত, পদার্থবিদ্যা, ফলিত পদার্থবিদ্যা, পরিসংখ্যান, হিসাব বিজ্ঞান, কম্পিউটার সায়েন্স, ইলেকট্রনিক্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের পরীক্ষা ছাড়া অন্যসব পরীক্ষার দিন হলে ক্যালকুলেটর ব্যবহার নিষিদ্ধ। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে আবশ্যিক বিষয়ের পরীক্ষা শুরু হবে, যা চলবে ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। পদ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোর পরীক্ষা হবে ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত। ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল, সিলেট ও রংপুর কেন্দ্রে একযোগে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে পরীক্ষার হল গেটে তল্লাশি চালিয়ে ক্যালকুলেটর বা কোন ডিভাইস পাওয়া গেলে পরীক্ষার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করার ঘোষণা দিয়েছিল পিএসসি। বাংলা বিষয়ের জন্য আরেকটি নির্দেশনা দিয়ে ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৭ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠেয় বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয়পত্রের জন্য ভিন্ন ভিন্ন কোড না থাকলেও প্রথমপত্রে ০০১ এবং দ্বিতীয়পত্রে ০০২ কোড লিখতে হবে। দুটি লিথোকোডযুক্ত মূল উত্তরপত্রে দুই অংশে উত্তর লিখতে হবে। একই উত্তরপত্রে দুই পত্রের উত্তর দিলে তা বাতিল হবে। একই প্রশ্নপত্রে ভিন্নভাবে দুই পত্রের জন্য ১০০ নম্বর করে প্রশ্ন থাকবে। ৭ সেপ্টেম্বর কারিগরি/পেশাগত ক্যাডারের পছন্দের প্রার্থীদের জন্য (খ) ক্রমিকে বর্ণিত ১০০ নম্বরের তিন ঘণ্টার বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষার শর্ত ও কোড নম্বর অপরিবর্তিত থাকবে বলে জানিয়েছে পিএসসি। নতুন নিয়মে এবার সর্বোচ্চ দুই লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন প্রার্থী নিয়ে গত ৬ মার্চ ৩৫তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত ৮ এপ্রিল ৩৫তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে পিএসসি, যাতে উত্তীর্ণ হয় ২০ হাজার ৩৯১ জন। নতুন নিয়মে ২০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা হবে চার ঘণ্টা আর ১০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে তিন ঘণ্টা। লিখিত পরীক্ষায় গড় পাস নম্বর ন্যূনতম ৫০ শতাংশ। কোন প্রার্থী ৩০ নম্বরের কম পেলে তিনি উক্ত বিষয়ে কোন নম্বর পাননি বলে গণ্য হবে। লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় একই ভাবে পাস করতে হবে। বিসিএস বিধিমালা সংশোধনের পর নতুন নিয়ম ও সিলেবাসে ২০০ নম্বরে দুই ঘণ্টার প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নেয়া হয়। আগে ১০০ নম্বরে এক ঘণ্টা প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতো।