২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রংপুরে স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীর ফাঁসি

স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর ॥ স্বামী আহসানুল হক বেলালকে হত্যা করে লাশ গুমের দায়ে পলাতক স্ত্রী সুফিয়া বেগমের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে রংপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজের আদালত। এছাড়া অপর আসামি হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে খালাসের আদেশ দিয়েছে আদালত।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০১০ সালের ৪ জুন রাতে নগরীর মাহীগঞ্জ জে.বি সেন রোড এলাকার ব্যবসায়ী আহসানুল হক বেলালকে অর্থ ও সম্পত্তির লোভে তার স্ত্রী সুফিয়া বেগম ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে হত্যা করে। পরে তার লাশ দা দিয়ে কুপিয়ে দুই টুকরো করে বস্তায় ভরে বাইরে নিয়ে লুকাবার সময় ধরা পড়ে। সে রাতেই পুলিশ লাশ উদ্ধার এবং স্ত্রী সুফিয়া বেগম ও তার ছেলে আসিফ ইকবাল শিশিরকে গ্রেফতার করে। এ বিষয়ে নিহতের বড় ভাই বুলবুল আহমেদ বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে পুলিশ ওই এলাকার ওষুধ বিক্রেতা, যার কাছ থেকে ঘুমের ওষুধ কিনেছিল সুফিয়া সেই হুমায়ুন কবীরকে গ্রেফতার করে।

স্বামীর আগুনেই মৃত্যু

স্বামীর নির্যাতনে দীর্ঘ ২১ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে মৃত্যুর কোলই বেছে নিতে হলো রংপুরের পীরগঞ্জের রেইন বেগমকে (২৪)। গত ২ আগস্ট তার স্বামী আব্দুল খালেক রেইনের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিলে অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রথমে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিক্যালে পাঠানো হলে সেখানেই রবিবার রাতে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

জানা গেছে, তিন বছর আগে পীরগঞ্জ উপজেলার কুমেদপুর ইউনিয়নের শরিফেরপাড়া গ্রামের আব্দুল হান্নানের মেয়ে রেইনের সঙ্গে মিঠিপুর ইউনিয়নের গবরা কুতুবপুর গ্রামের আব্দুল খালেকের সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী যৌতুকের ১ লাখ টাকার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল। ইতোমধ্যে তাদের সংসারে সন্তানও আসে। যৌতুকের টাকা দিতে রেইনের বাবা অপারগতা প্রকাশ করলে খালেক তার স্ত্রীর উপর প্রায়ই নির্যাতন করে।

শ্রীপুরে কারখানার দেয়ালচাপায় শ্রমিক নিহত

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাজীপুর, ২৪ আগস্ট ॥ শ্রীপুরে ক্রাউন উলওয়্যার লিমিটেড কারখানার ধসে পড়া দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে এক শ্রমিক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা কারখানা ভাংচুর, কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সোমবারের জন্য কারখানা ছুটি ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

নিহতের নাম নাসির আহম্মেদ (২৫)। সে শ্রীপুর উপজেলার পূর্ব আক্তাপাড়া গ্রামের আহাম্মদ আলীর ছেলে এবং ওই কারখানার ডায়িং সেকশনের কেমিক্যাল ডিস্ট্রিবিউটর।

টেকনাফে কলেজ ছাত্রী তিনদিন ধরে নিখোঁজ

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ টেকনাফে এক কলেজছাত্রী তিনদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে। কলেজে যাওয়ার পথে তাকে অপহরণ করা হয়েছে বলে ধারণা করছে তার স্বজনরা। কোথাও সন্ধান না পেয়ে ওই মেয়ের পিতা জালাল আহমদ টেকনাফ থানায় ডায়রি করেছেন। টেকনাফ ডিগ্রী কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সাবরাং পানছড়ি পাড়ার জালাল আহমদের মেয়ে ইসমত আরা প্রতিদিনের মতো শনিবার কলেজে গিয়ে আর বাড়ি না ফেরায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে পরিবারের সদস্যরা।

চারদিন ধরে অপর ব্যক্তি

টেকনাফে এক ব্যক্তিকে অপহরণ করে তুলে নেয়ার ৪ দিনেও খোঁজ পাওয়া যায়নি। অপহৃত ব্যক্তি হোসেন (৫০) শাহপরীরদ্বীপ পূর্বপাড়ার আবু ছিদ্দিকের পুত্র। সোমবার সকালে টেকনাফ থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে হোসেনের স্ত্রী রহিমা খাতুন বলেন, শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় তিন রাস্তার বাজারে কেনাকাটা করার সময় কয়েকজন লোক জোরপূর্বকভাবে সিএনজি ট্যাক্সিতে তুলে নিয়ে যায়।