২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশের গার্মেন্টসে কর্ম পরিবেশের উন্নতি হয়েছে

  • বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড সমর্থনযোগ্য নয় ॥ সোয়েন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কোন গণতান্ত্রিক দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড সমর্থনযোগ্য নয় বলে মনে করে যুক্তরাজ্য। এছাড়া বাংলাদেশে পোশাক খাতের কর্মপরিবেশের উল্লেখযোগ্য উন্নতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছে দেশটি। ঢাকায় তিন দিনের সফর শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ডেসমন্ড সোয়েন এ সন্তোষ প্রকাশ করেন। দেশের বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে ৩০ লাখ পাউন্ড আর্থিক সহায়তার ঘোষণা দেন ডেসমন্ড সোয়েন। বাংলাদেশে তিন দিনের সফর শেষে মঙ্গলবার রাজধানীর ব্রিটিশ হাইকমিশনের এ্যামিনিটিস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন ব্রিটিশ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী। ব্রিটিশ হাইকমিশন এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে ডেসমন্ড সোয়েন বলেন, কোন গণতান্ত্রিক দেশেই বিচারবহির্ভূত হত্যাকা- কখনও সমর্থনযোগ্য নয়। সকল বিচারবহির্ভূত হত্যার বিষয়ে পুলিশ ও সরকারের উচিত তদন্ত করা। সকল হত্যাকা-েরই সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত।

বিচারবহির্ভূত হত্যা নিয়ে ডেসমন্ড সোয়ানে বলেন, যদিও তিন দিনের সফরে আমি এ বিষয়ে মন্তব্য করার সঠিক ব্যক্তি নই। তবুও এমনটি বিশ্বের কোন দেশের ক্ষেত্রেই সমর্থনযোগ্য নয়। বাংলাদেশের সুশাসন বিষয়ে তিনি বলেন, এখন সময় এসেছে সুশাসন বিষয়ে বাংলাদেশকে জোর দিতে হবে। এর প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। অন্য সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়েছে, সুশাসনের বিষয়েও এগিয়ে যেতে হবে। তবেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হবে। বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে উল্লেখ করে সোয়েন আরও বলেন, এই খাতে ৪০ লাখ মানুষ কাজ করেন, যার মধ্যে ৭০ শতাংশই নারী। এই খাতে আরও বিনিয়োগ বাড়িয়ে দেশ ও দেশের মানুষকে সচ্ছল করা সম্ভব।

এক প্রশ্নের উত্তরে ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের পোশাক শিল্প খাতে কর্মপরিবেশের উন্নয়ন শুরু হয়েছে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা ইতোমধ্যেই ৭৫৯টি পোশাক কারখানা পরিদর্শন করেছে। বাংলাদেশ সরকার ২০০ পোশাক কারখানায় পরিদর্শক নিয়োগ দিয়েছে। এসবই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। তবে উল্লেখযোগ্য উন্নয়নের জন্য আরও অনেক দূর যেতে হবে।

দেশে বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য ৩০ লাখ পাউন্ড আর্থিক সহায়তারও ঘোষণা দেন তিনি। প্রতিশ্রুত এ সহায়তার অর্থ দিয়ে ঘূর্ণিঝড় কোমেন ও মৌসুমী বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এক লাখের বেশি মানুষের জন্য ত্রাণ আনা হবে বলে তিনি জানান। ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রী জানান, এ সফরে তিনি এই দেশের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে বিশুদ্ধ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নতি দেখেছেন। তিনি বলেন, আমি ঢাকা শহরের বিভিন্ন বস্তিও পরিদর্শন করেছি। বস্তির বাসিন্দাদের বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। বিশেষ করে পানি সমস্যা রয়েছে। বস্তির উন্নয়নে সকলেরই নজর দেয়া প্রয়োজন বলেও তিনি মন্তব্য করেন। ব্লগার হত্যাকা-ে জড়িত থাকার অভিযোগে এক ব্রিটিশ নাগরিককে গ্রেফতারের বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে ব্রিটিশ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই ব্রিটিশ নাগরিকের বিষয়ে তদন্ত চলছে। বাংলাদেশ সরকারের পুলিশ বিভাগ ও বিচার বিভাগ এ বিষয়ে কাজ করছে। সে কারণে আমি এ বিষয়ে বেশি কিছু বলতে চাইছি না। বাংলাদেশের গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে কিনা, এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে ব্রিটিশ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী জানান, গণতন্ত্রের জন্য গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে কোন দেশেই গণমাধ্যমের স্বাধীনতা থাকা উচিত। তবে বাংলাদেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতার বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করতে চাই না। কেননা এ বিষয়ে মন্তব্যের জন্য আমি যথাযথ ব্যক্তি নই।