১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চাপমুক্ত বাংলাদেশ!

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চাপমুক্ত বাংলাদেশ!
  • ফিফা বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচ খেলতে আজ রাতে ঢাকা ত্যাগ বাংলাদেশ জাতীয় দলের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ একদিকে আছে এশিয়ার সেরা দল, যাদের ফিফা র‌্যাঙ্কিং ৬১। আরেকদিকে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা দল। তাদের ফিফা র‌্যাঙ্কিং ১৭০। যদি দুই দলের মধ্যে লড়াই হয়, তাহলে জিতবে কে? স্বভাবতই বেশিরভাগই রায় দেবেন প্রথম দলটির পক্ষে। তবে খেলাটি যেহেতু ফুটবল, আর ফুটবলে সবই সম্ভব, তাই দ্বিতীয় দলটির পক্ষেও ফল অনুকূলে যেতে পারে। প্রথম দল অস্ট্রেলিয়া ও দ্বিতীয় দল বাংলাদেশ। ফিফা বিশ্বকাপ বাছাই এবং এএফসি এশিয়ান কাপ বাছাইপর্বের খেলাগুলো এবার নতুন নিয়মে একীভূত করা হয়েছে। সে মোতাবেক আগামী ৩ আগস্ট অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ‘এ্যাওয়ে’ ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে ১০৯ ধাপ পিছিয়ে বাংলাদেশ। র‌্যাংঙ্কিংই বুঝিয়ে দিচ্ছে দুই দলের মধ্যে শক্তির ফারাক কতটা। প্রতিপক্ষ যত কঠিনই হোক না কেন, চাপমুক্ত হয়ে নিজেদের সেরা ম্যাচ ধরে নিয়েই মাঠে নামবে মামুনুল ইসলামের দল।

অস্ট্রেলিয়াকে মোকাবেলা করার আগে মালয়েশিয়া জাতীয় ফুটবল দলের সঙ্গে তাদের মাটিতে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ জাতীয় দল। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ২৯ আগস্ট। এ লক্ষ্যে আজ রাত ১টা ২০ মিনিটে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বে বাংলাদেশ দল।

সবদিক থেকেই এগিয়ে থাকা অস্ট্রেলিয়াকে সমীহ করলেও তাদের ভয় পাচ্ছে না বাংলাদশে। ২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ্বকাপের এশিয়া অঞ্চলের বাছাই পর্বের ম্যাচ সামনে রেখে বাংলাদেশ অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম অস্ট্রেলিয়াকে ভয় না পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পার্থে মামুনুলদের ম্যাচটি আগামী ৩ সেপ্টেম্বর। বাংলাদশে ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ভবনের কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে মঙ্গলবার এই দুই ম্যাচ নিয়ে নিজেদের লক্ষ্যটা জানান, ‘এটা আমাদের জন্য অনেক বড় ম্যাচ। আগামী ১০-১৫ বছরের মধ্যে তাদের (অস্ট্রেলিয়া) সঙ্গে আমাদের খেলা হবে কি না কে জানে, কিন্তু এই ম্যাচে আমাদের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা থাকবে। তাদের নিয়ে আমাদের কেউ ভীত না। ইউটিউবে কিরগিজস্তান-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ দেখেছি। ওদের খেলোয়াড়দের পর্যবেক্ষণ করেছি। ওদের নিয়ে পরিকল্পনা করে ফেলেছি। আমাদের জীবনের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে।’

মালয়েশিয়ার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ সম্পর্কে মামুনুর বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে যে কৌশলে খেলব, একই কৌশলে আমরা মালয়েশিয়ার বিপক্ষেও খেলব। যদি এই কৌশলে মালয়েশিয়াকে হারাতে পারি, তাহলে আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়বে। তাই ম্যাচটি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বর্পূণ। বাফুফকে ধন্যবাদ আমাদের এই প্রস্তুতি ম্যাচটা খেলতে দেয়ার ব্যবস্থা করে দেয়ার জন্য। এই ম্যাচটা খেলার পরই আমরা নিজেদের পরিকল্পনাটা আরও ভালভাবে গোছাব।’

উল্লেখ্য, বাছাই পর্বে ‘বি’ গ্রুপে গত দুই ম্যাচে নিজেদের মাঠে কিরগিজিস্তানরে বিপক্ষে ৩-১ গোলে হারের পর তাজিকিস্তানের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে বাংলাদেশ। বাছাইপর্বে নিজেদেরে প্রথম ম্যাচে কিরগিজস্তানকে ২-১ গোলে হারায় অস্ট্রেলিয়া।

মামুনুল মনে করছেন অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচটা বাংলাদেশ জাতীয় দলের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জও। আর চ্যালেঞ্জ থাকলে দল ভাল করে। দু’দলের পার্থক্যটা কত, তা তো দেশের ১৮ কোটি জনগণও জানে। তারপরও নিজেদের তাগিদেই দলের সবাই ভাল করবে। আর এই ম্যাচটা জর্দানের বিপক্ষেও (৮ সেপ্টেম্বর, ভেন্যু : ঢাকা) বাংলাদেশ জাতীয় দলের জন্য প্রেরণা হয়ে কাজ করবে বলে মনে করছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক।

দলের ডাচ্ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ বলেন, ‘আমি খুশি। দলের সবাই আগামী তিন ম্যাচের জন্য প্রস্তুত। মালয়েশিয়ার পর আমাদের বড় পরীক্ষা অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়া সম্পর্কে তো কারও অজানা নয়। তাদের দলের অনেক খেলোয়াড় ইউরোপে লীগে খেলে। তবে ওই ম্যাচের পর বাংলাদেশে জর্দানের সঙ্গে ম্যাচ। যেখানে আমাদের সুযোগটা আরও বেশি। অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। ছেলেরা সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে প্রস্তত আছে।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রণকৌশল কেমন হবে? ক্রুইফের উত্তর, ‘ফুটবলে যে কোন কিছুই সম্ভব। আমার ছেলেদের শতভাগ অনুপ্রাণিত করেছি। অস্ট্রেলিয়া একটি হাইপ্রোফাইল খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া দল। তাদের সঙ্গে আমরা জিতলেও খুশি, ড্র করলেও খুশি, হারলেও অখুশি হবো না।’

সেটপিস, বল পজিশন, কর্নার কিক। দলের সব বিষয় নিয়েই কাজ করেছেন ক্রুইফ। বিশেষ করে বাংলাদেশ দলের দুর্বলতা সেটপিস নিয়েই বেশি কাজ করেছেন ক্রুইফ। কাজ করেছেন রক্ষণভাগ নিয়েও। অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের বিপক্ষে কাউন্টার এ্যাটাকে যেতে হয় তো কয়েক সেকেন্ড সময় পাবে বাংলাদেশ। সেটিও মাথায় রেখেছেন ক্রুইফ। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ম্যাচে ডাগআউটে থাকতে পারবেন না ক্রুইফ ফিফার নিষেধাজ্ঞার জন্য। তবে তাতে বিশেষ কোন অসুবিধা হবে না বলেই ক্রুইফের বিশ্বাস।

বাংলাদেশ স্কোয়াড ॥ গোলরক্ষক : রাসেল মাহমুদ লিটন, আশরাফুল ইসলাম রানা, শহীদুল আলম সোহেল; রক্ষণভাগ : নাসির উদ্দিন চৌধুরী, ইয়ামিন মুন্না, রায়হান হাসান, ইয়াসিন খান, আতিকুর রহমান মিশু, নাসিরুল ইসলাম নাসির, তপু বর্মণ, মোহাম্মদ লিঙ্কন; মধ্যমাঠ : জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম, সোহেল রানা, ইমন বাবু, হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস, জুয়েল রানা, জাহিদ হোসেন, মোনায়েম খান রাজু; আক্রমণভাগ : তকলিস আহমেদ, জাহিদ হাসান এমিলি, এনামুল হক ও আবদুল বাতেন কোমল।