২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও তিস্তা ব্যারাজ দিয়ে ভারি যান পারাপার

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে মালবোঝাই ভারি যানবাহন পারাপারের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ মতে ভারি যানবাহন যাতে ব্যারাজের ওপর দিয়ে পারাপার হতে না পারে সেজন্য নির্মিত ব্যারিকেটের খুঁটি ভেঙ্গে ও গাছ কেটে ফেলে তিস্তা ব্যারাজের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার সদস্য ও কিছু অসাধু কর্মকর্তার আঁতাতে রাতের আঁধারে চুপিসারে টাকার বিনিময়ে ভারি যানবাহন পারাপারে সুযোগ করে দিচ্ছে। এদিকে তিস্তা ব্যারাজে যে চারটি সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণের জন্য লাগানো হয়েছিল সেগুলো অকেজো করে দেয়া হয়েছে। এতে কেপিআই ওয়ানের আওতায় তিস্তা ব্যারাজটি পুনরায় হুমকির মুখে পড়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডালিয়া ডিভিশন সূত্র মতে দীর্ঘদিন ধরে তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে ৪০ মেট্রিক টন মাল বোঝাই ট্রাক পারাপারের কারণে ব্যারাজের বেশ কিছু স্থানে ফাটল দেখা দেয়। ব্যারাজটি রক্ষার্থে পানি উন্নয়ন বোর্ড গত বছরের ২৫ নবেম্বর থেকে তিস্তা ব্যারাজের ওপর দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করে নোটিস ঝুলিয়ে দেয়। আর এজন্য ব্যারাজের দুই প্রান্তের সড়কে স্থাপিত করা হয় বাস-ট্রাক যাতে প্রবেশ করতে না পারে, সেজন্য ব্যারিকেট হিসেবে আরসিসি খুঁটি। ব্যারাজের ওপর দিয়ে ভারি যানবাহন বন্ধ করে দেয়ায় সরকারকে অভিনন্দন জানিয়ে সে সময় তিস্তা ব্যারাজের সেচ সুবিধাভোগী ৪৬টি কৃষক সমিতির পক্ষে আনন্দ মিছিল করা হয়।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ শিক্ষকদের ২য় ব্যাচের প্রশিক্ষণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাজীপুর, ২৫ আগস্ট ॥ মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতার চেতনা ও মূল্যবোধ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ধারণ ও লালনের লক্ষ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শীর্ষক সবার জন্য আবশ্যিক বিষয়ে কলেজ শিক্ষকদের দ্বিতীয় ব্যাচের বিশেষ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সোমবার সম্পন্ন হয়েছে। এ প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী ও সনদ বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বক্তব্য রাখেন। গাজীপুরের বোর্ডবাজারস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট হলে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ১ম বর্ষ স্নাতক ও স্নাতক (সম্মান)-এর সকল শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য ‘স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শীর্ষক ১০০ নম্বরের একটি কোর্স অবশ্য পাঠ্য করায় এখন ২০ লাখ শিক্ষার্থীর সকলকে এটি বাধ্যতামূলকভাবে পাঠ করতে হচ্ছে।