২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অবকাঠামো না করেই ডাক্তার স্টাফ নিয়োগ

  • কমিউনিটি ক্লিনিক

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ ডাক্তারসহ প্রয়োজনীয় স্টাফ রয়েছে কিন্তু নেই কোন অবকাঠামো। ফলে এসব স্বাস্থ্যকেন্দ্র বা কমিউনিটি ক্লিনিকের ডাক্তার ও স্টাফরা বসে বসে বেতন গুনছেন। তবে এসব কেন্দ্রের ডাক্তাররা বাড়িতে বসে নেই। তারা বিভিন্ন বেসরকারী ক্লিনিক অথবা যে কোন স্থানে চেম্বার খুলে সরকারী ডাক্তার পরিচয়ে চুটিয়ে ব্যবসা বা প্র্যাকটিস করছেন। এমনি জেলা শহরসংলগ্ন বারঘরিয়া ইউনিয়ন। এখন পর্যন্ত কোন অবকাঠামো না থাকায় এখানকার ডাক্তার জেলা শহরের একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরি জুটিয়ে নিয়ে সারাদিন বিশেষজ্ঞ সরকারী ডাক্তার পরিচয়ে প্রতারণা করে চলেছেন। সদর উপজেলায় এ ধরনের সরকারী ডাক্তারের সংখ্যা প্রায় আটজন। এরা নিয়োগ পেয়েছেন বারঘরিয়াসহ বাগডাঙ্গা, ঝিলিম, শাহজাহানপুর, নারায়ণপুর, উনুপনগর, আলাতুলি ও ইসলামপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ডাক্তার হিসেবে। কিন্তু এসব ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত কোন স্বাস্থ্যকেন্দ্র নির্মাণ না করায় ডাক্তার ও কর্মচারীরা ভাসমান অবস্থার মধ্যে রয়েছেন। এসব ইউনিয়নের জনসাধারণ পাচ্ছে না কোন ধরনের স্বাস্থ্যসেবা। এ ব্যাপারে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা সাংবাদিক পরিচয় জানতে পেরে কথা বলতে অস্বীকার করেন। তাদের বক্তব্য, এ বিষয়ে কথা বললে চাকরি চলে যাবে। তবে তারা স্বীকার করেছেন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের অবকাঠামো না থাকার।

দামুড়হুদায় মোটাতাজা করতে গরুকে দেয়া হচ্ছে স্টেরয়েড

সংবাদদাতা, দামুড়হুদা, চুয়াডাঙ্গা, ২৫ আগস্ট ॥ কোরবানি ঈদ সামনে রেখে স্টেরয়েড, প্রি-ডেক্সানল, ডেক্সামেথাসন, বেটামেথাসন, পেরিআ্যাকটিন, প্যারাডেক্সা ও ওরাডেক্সান নামে বিভিন্ন নিষিদ্ধ ওষুধ সেবনে গরু মোটাতাজাকরণের প্রতিযোগিতায় নেমেছে দামুড়হুদা-চুয়াডাঙ্গার খামারিরা। এসব ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছে গরুকে। এতে অল্প দিনে ফুলে ফেঁপে উঠছে গরু। তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এসব ওষুধ হাঁপানিসহ মানবদেহের জটিল রোগের ওষুধ। এগুলো সেবনে মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। আবার মাত্রাতিরিক্ত সেবন করানো হলে প্রভাব ভয়ঙ্কর। প্রাণিস¤পদ কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে ওষুধ সেবন ও ইনজেকশন প্রয়োগ করে গরু-মহিষ মোটাতাজা করা হচ্ছে। এছাড়া ঈদকে সামনে রেখে বর্ষার শুরু থেকে এক শ্রেণীর মৌসুমি খামারি নিষিদ্ধ ওষুধ ও ইনজেকশন প্রয়োগ করে বাড়িতেই গরু মোটাতাজা করছে।