২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চট্টগ্রামে সাবেক কাস্টমস কর্মকর্তার জেল-জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক ॥ অবৈধভাবে সম্পদের মালিক হওয়া ও সম্পত্তির তথ্য গোপনের দায়ে সাবেক এক কাস্টমস কর্মকর্তাকে সাজা দিয়েছে চট্টগ্রামের একটি আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্ত শেখ আকরাম হোসেন টেকনাফের কাস্টমস এক্সাইজ অ্যান্ড ভ্যাট কার্যালয়ের তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন।

বুধবার চট্টগ্রামের বিভাগীয় বিশেষ জজ মীর রুহুল আমিন দুদক আইনের দুটি ধারায় তাকে এক ও সাত বছর করে কারাদণ্ড দেন। রায়ের পরপরই শেখ আকরামকে আদালত থেকে কারাগারে পাঠানো হয়।

সেইসঙ্গে ‘অবৈধভাবে উপার্জিত’ এক কোটি ৯৪ লাখ ৪২ হাজার ৪৩৭ টাকার পুরোটাই তাকে জরিমানা করেছেন বিচারক।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মাহমুদুল হক জানান, জরিমানার অর্থ না দিতে পারলে আকরামকে আরও এক বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

তিনি বলেন, জরিমানার টাকা আসামীর স্থাবর সম্পত্তি থেকে কেটে নিয়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

একই মামলার অপর দুই আসামী আকরামের দুই স্ত্রী জাহানারা বেগম ও নিলুফার ইয়াসমিনের অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস দেওয়া হয়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ৯২ লাখ ১১ হাজার ১৫ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন ও এক কোটি ৯৪ লাখ ৪২ হাজার ৪৩৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদক চট্টগ্রাম সমন্বিত কার্যালয়-২ এর উপ-পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন ২০১১ সালের ১৬ অক্টোবর ডবলমুরিং থানায় আকরামের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

তদন্ত শেষে দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক আজিজুল হক ২০১৩ সালের ২৪ জুলাই ‘দুদক আইন ২০০৪’ এর ২৬ (২) ও ২৭ (১) ধারায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন এবং পরের বছরের ৭ মে আদালত অভিযোগ গঠন করে।