২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মনে হয় একটু বেশিই পেয়ে যাচ্ছি

মনে হয় একটু বেশিই পেয়ে যাচ্ছি
  • ইউএস ওপেনে শীর্ষ বাছাই হিসেবে খেলতে নামবেন আমেরিকান তারকা সেরেনা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আমেরিকান টেনিসের জীবন্ত কিংবদন্তি সেরেনা উইলিয়ামস। অসাধারণ সব কীর্তি গড়ে নিজেকে নিয়ে গেছেন ইতিহাসের সোনালী পাতায়। ২১টি গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট জিতেছেন তিনি। গত মাসে উইম্বলডন জিতে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো ‘সেরেনা সøাম’ জয়ের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা। টেনিস ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি বয়সী প্রমীলা খেলোয়াড় হিসেবে টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে অবস্থান করছেন তিনি। শুধু তাই নয়, ১৯৭২ সালের পর থেকে তার বয়সের কোন পুরুষও এখন পর্যন্ত কোন মেজর শিরোপা জিততে পারেননি। অথচ এই সেরেনা এখনও টেনিস কোর্টে অপ্রতিরোধ্য। আগামী সপ্তাহ থেকেই শুরু হতে যাওয়া ইউএস ওপেনে ফেবারিট হিসেবেই কোর্টে নামতে যাচ্ছেন তিনি। আর এতে গর্বিত-রোমাঞ্চিত ৩৩ বছর বয়সী এই আমেরিকান। নিজেকে সৌভাগ্যবান হিসেবেই মানছেন কৃষ্ণকলি। এ বিষয়ে সেরেনা উইলিয়ামস বলেন, ‘আমি অবশ্যই বেশি কিছু পেয়েছি। এই বয়সে আমি যা পেয়েছি তা আসলেই সন্তোষজনক। তবে প্রকৃতপক্ষে আমি নিজেকে বয়সী অনুভব করছি না।’

গত মাসে উইম্বলডন জয়ের সৌজন্যেই দ্বিতীয়বারের মতো ‘সেরেনা সøাম’ জিতেন তিনি। আর এ অর্জনটা তার ক্যারিয়ারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলেও মন্তব্য করেছেন আমেরিকান তারকাÑ ‘একই সময়ে সব শিরোপা জেতা তাও আবার ক্যারিয়ারে দুইবার, আসলেই এটা অনেক বড় অর্জন। আমার জন্য এটা খুবই গুরুত্বপুর্ণ।’ এখানেই থেমে থাকতে নারাজ টেনিসের এই জীবন্ত কিংবদন্তি। তার সামনে এখন নতুন মাইলফলকের হাতছানি। মৌসুমের শেষ মেজর শিরোপা জিততে পারলে প্রথমবারের মতো ‘ক্যালেন্ডার সøাম’ জয়ের রেকর্ড করবেন তিনি। সেইসঙ্গে স্টেফিগ্রাফের জেতা ২২টি গ্র্যান্ডসøামের রেকর্ডেও ভাগ বসাবেন সেরেনা উইলিয়ামস। টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা সেরেনার পারফর্মেন্সে মুগ্ধ স্টেফিগ্রাফ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সেরেনা আসলে অপ্রতিরোধ্য এবং বিস্ময়কর এক খেলোয়াড়ের নাম।’

সদ্যসমাপ্ত সিনসিনাতি মাস্টার্সের শিরোপা জিতেছেন সেরেনা। পুরো টুর্নামেন্টেই দুর্দান্ত খেলে ফাইনালে সিমোনা হ্যালেপকে পরাজিত করে ক্যারিয়ারের ৬৯তম ডব্লিউটিএ শিরোপা নিজের করে নেন তিনি। সেইসঙ্গে বছরের পঞ্চম শিরোপা জয়ের স্বাদ পান সেরেনা। সেরেনার বিশ্বাস এখনও সঠিক পথেই আছেন তিনি। সেইসঙ্গে জানালেন উন্নতি করারও সময় আছে তারÑ ‘আমার খেলা নিয়ে আমি মনে করি ঠিক আছে। তবে আমি সবসময়ই চাই আরও ভাল করতে।’ তবে ইতিহাসের কথা শুনতে পছন্দ না তার। বরং শুধু টেনিস খেলাতেই সব মনোযোগ দিতে চান সেরেনা উইলিয়ামস, ‘আমি চাই শুধুই টেনিস খেলতে। আমি কখনই চাই না এসব ইতিহাস শুনতে বরং টেনিস কোর্টে সেরাটা দেয়াই আমার একমাত্র লক্ষ্য।’ আগামী সোমবার থেকে শুরু হবে মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট। আর বছরের শেষ মেজর টুর্নামেন্টে শীর্ষ বাছাই হিসেবেই কোর্টে নামবেন সেরেনা উইলিয়ামস। ফ্লাশিং মেডোয় গত তিনবারের চ্যাম্পিয়ন সেরেনা। সর্বশেষ গত বছরের ফাইনালে বান্ধবী ক্যারোলিন ওজনিয়াকিকে হারিয়ে খেতাব জিতেছিলেন এই মার্কিন তারকা। দ্বিতীয় বাছাই হিসেবে খেলবেন বিশ্বের দুই নাম্বার রোমানিয়ার সিমোনা হ্যালেপ। ২০০৬ সালের চ্যাম্পিয়ন মারিয়া শারাপোভা এবার নামবেন তৃতীয় বাছাই হিসেবে। চতুর্থ বাছাই গতবারের রানারআপ ওজনিয়াকি। পঞ্চম বাছাই চেকপ্রজাতন্ত্রের সুন্দরী পেত্রা কেভিতোভা।

বছরের শেষ মেজর টুর্নামেন্টে কোর্টে নামার আগে মঙ্গলবার ভিন্নভাবে ক্যামেরাবন্দী হলেন টেনিসের সাবেক ও বর্তমান সব তারকারা। নিউইয়র্কের বিখ্যাত হলুদ ট্যাক্সির উপরে বিখ্যাত সব মুখ। একই ফ্রেমে এতসব তারকাÑ বিস্ময় সৃষ্টি করে ভক্ত-অনুরাগীদের। নিউইয়র্কের গ্রিনউইচ ভিলেজে চিত্রায়িত বিজ্ঞাপন চিত্রে এমনভাবেই ধরা পড়েছেন তারা। কে নেই এক ফ্রেমে? রজার ফেদেরার থেকে রাফায়েল নাদাল, সেরেনা উইলিয়ামস থেকে মারিয়া শারাপোভা, পিট সাম্প্রাস থেকে আন্দ্রে আগাসি কিংবা ওয়ারিঙ্কা থেকে কির্গিওস। সব মিলিয়ে যাদের দাম ১.১ বিলিয়ন। নাইকির সাড়া ফেলে দেয়া সেই বিজ্ঞাপন চিত্রটি টেনিস অনুসারীদের মনে থাকার কথা। হঠাৎই নিউইয়র্কের ব্যস্ত রাস্তায় ট্যাক্সি থেকে ছিটকে বেরুলেন পিট সাম্প্রাস ও আন্দ্রে আগাসি। রাস্তার ওপরই নেট বসিয়ে দুই মহাতারকা টেনিস খেলতে শুরু করেছেন! একই ‘থিম’ নিয়ে এবার ক্রীড়া সরঞ্জামাদি প্রতিষ্ঠানটি তৈরি করছে নতুন বিজ্ঞাপন চিত্র। এবার আর দু’জন নয়, সাবেক-বর্তমান তারকাদের মেলাই নিউইয়র্কের রাস্তায় বসাচ্ছে নাইকি। কে নেই এ কমার্শিয়ালে? রজার ফেদেরার একপাশে তো ওপাশে রাফায়েল নাদাল। গাড়ির বনেটে বসে মারিয়া শারাপোভা আর টেনিস র‌্যাকেট হাতে আমেরিকান তারকা সেরেনা। নিউইয়র্কের গ্রিনউইচ ভিলেজে চিত্রায়িত বিজ্ঞাপন চিত্রে দেখা যাবে আরও কয়েকজন তারকাকে।