২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাঝি ॥ দ্য মাউন্টেন ম্যান

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরের কথা, সে সময় চীনে ১৯ বছরের এক ছেলে প্রেমে পড়ে তার চেয়ে দশ বছরের বড় এক বিধবার, যার কিনা একটা বাচ্চাও ছিল। লুকিয়ে তারা বিয়েও করে কিন্তু সে সময় চীনে এই অসম বিয়ের ব্যাপারটা ভাল চোখে দেখা হতো না। তাই সমাজ থেকে বাঁচতে তারা পালিয়ে যায় দূরের এক পাহাড়ে। প্রথম প্রথম অনেক কষ্টে ছিল তারা। কারণ ঘরে খাবার ছিল না, পানি ছিল না। তাই ঘাস আর গাছের মূল খেয়েই ওরা জীবনযাপন করতে থাকে। ছেলেটা মেয়েটাকে কেরোসিনের একটা বাতি বানিয়ে দিয়েছিল। যা ছিল রাতের বেলায় তাদের একমাত্র সম্বল। মেয়েটা মাঝে মাঝে ছেলেটাকে জিজ্ঞাস করত, তোমার কোন আফসোস নেই তো? ছেলেটা বলত, একসঙ্গে থাকি আর এক সময় তো জীবন পাল্টাবে। ছেলেটা রোজ বের হয়ে যেত কাজের সন্ধানে আর মেয়েটা অনেক কষ্ট করে খাবার যোগাড় করত পাহাড়ের নিচ থেকে। এর প্রায় ৫০ বছর পর এক দল প্রতœতাত্ত্বিক সেই পাহাড়ে গিয়ে দেখল, পাহাড়ের চূড়া থেকে নিচ পর্যন্ত অসংখ্য সিঁড়ির ধাপ কাটা। ছেলেটা প্রতিদিন একটু একটু করে প্রায় সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি সিঁড়ি কেটে রেখেছিল, যাতে বউটার নিচে নামতে কষ্ট না হয়।

চীনের এই ঘটনার এক যুগ পর অর্থাৎ ১৯৬০ সালে এমনি আরেক ঘটনার জন্ম হয় ভারতের বিহার রাজ্যের গেহলুর নামক ছোট গ্রামে। যে গ্রামটি একটা পাহাড় দ্বারা পরিবেষ্টিত। এই গ্রামের মানুষ শুধুমাত্র চিকিৎসার জন্য পার্শ্ববর্তী শহর ওয়াজিরগঞ্জ যেত। অনেকেই গ্রামটিকে ভিনদেশী গ্রহ মনে করত এবং বলত এটি বিশ্ব জাগতিক গ্রহের মধ্যে পড়ে না। তবে গ্রামের মানুষ নিজের গ্রাম ছেড়ে বাইরে না যাওয়ার প্রধানতম কারণ ছিল সেই দুর্লঙ্ঘ পাহাড়। কারণ গ্রামের বাইরে যেতে হলে পাহাড় বেয়ে যেতে হয় যা ছিল সকলের জন্যই কষ্টসাধ্য।

গেহলুর গ্রামেই বাস করত দশরথ মাঝি ও তার স্ত্রী ফাগুনী দেবী। একবার ফাগুনী দেবী চিকিৎসার জন্য ওয়াজিরগঞ্জ যেতে পাহাড়ে পা ফসকে পড়ে যায় এবং গুরুতর আহত হয় এবং এক সময় এই অসুস্থর জন্যই ফাগুনী দেবী মারা যায়। যা মাঝিকে ভাবিয়ে তোলে এবং মাঝি স্ত্রীর স্মরণে সেই পাহাড়ের বুকে রাস্তা তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়। যেহেতু মাঝি খুব দরিদ্র্য ছিল, তাই শুধু হাতুড়ি ও বাটালি দিয়েই সে পাহাড়ের বুকে রাস্তা তৈরির কাজ শুরু করে। যা দেখে গ্রামের অন্যরা তাকে নিয়ে নানা রকম বিদ্রƒপ করে। কিন্তু মাঝি কারো কথা। কর্ণপাত না করেই দীর্ঘ ২২ বছর ধরে পাহাড়ের বুকে রাস্তা তৈরির কাজ করে এবং অবশেষে ১৯৮২ সালে ৩৬০ ফিট দীর্ঘ, ২৫ ফিট গভীর ও ৩০ ফিট চওড়া রাস্তার কাজ শেষ করেন। ২২ বছরের এই কষ্টসাধ্য কাজকে তিনি সম্রাট শাহজাহানের তৈরি তাজমহলের সঙ্গে তুলনা এবং স্ত্রীর প্রতি নিজের ভালবাসাটুকু প্রকাশ করেন। মাঝির এই অসাধারণ কৃতিত্বের জন্য গ্রামের মানুষ তাকে দ্য মাউন্টেন ম্যান খেতাব দিয়ে থাকে। অবশেষে ২০০৭ সালে মাঝি দ্য মাউন্টেন ম্যান মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। তবে তার এই কৃতিত্বকে সম্মান দেখিয়ে বিহারের চীফ মিনিস্টার তাকে পদ্মাশ্রী পুরস্কারে ভূষিত করেন এবং তার নামে সেই রাস্তার নামকরণ ও একটি হাসপাতালেরও নামকরণ করা হয়।

গেল শুক্রবার বলিউডে মুক্তি পেল ‘মাঝি-দ্য মাউন্টেন ম্যান’। বিহারের দশরথ মাঝির আত্মজৈবনিক এই সত্য ঘটনাকেই ছবিতে পূর্ণ রূপ দিয়েছেন বলিউড পরিচালক কেতন মেহতা। যিনি কিনা কয়েক বছর থেকেই ছবিটি তৈরির জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন, কিন্তু সুযোগের অভাবে তা আর পেরে ওঠেননি। পরে নানা প্রতিকূলতার মাঝেও তিনি ছবিটির কাজ শুরু করেন এবং গেল শুক্রবার তা মুক্তি দিয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তোলেন। তাই ছবির প্রসঙ্গে পরিচালক কেতন মেহতা বলেন, আজ আমি অনেক আনন্দিত এই ভেবে যে আমি আমার জীবনের সেরা ছবিটি দর্শকদের উপহার দিতে পেরেছি। কারণ আমার ছবিটি যেহেতু সত্য ঘটনা অবলম্বনে তৈরি, সেহেতু এটা দর্শকনন্দিত হবে আমার দেশের দর্শকসহ সারাবিশ্বের দর্শকদের কাছে। তাছাড়া আজকের এই জেনারেশন ভারতবর্ষের আরও একটি অমর প্রেম কাহিনীর স্মারক হয়ে থাকবে। মাঝি ছবিটিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের মেধাবী অভিনেতা গ্যাংস অব ওয়াসিপুরখ্যাত নওয়াজ উদ্দিন সিদ্দিকি ও তার স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন অহল্যা খ্যাত অভিনেত্রী রাধিকা আপ্তে। তাছাড়া আরও আছেন পঙ্কজ ত্রিপাঠী, আশরাফ উল হক, জগত রাওয়াত, দীপা সাহি প্রমুখ। সম্প্রতি বলিউডের আলোচিত ছবি বাজরাঙ্গি ভাইজানে অসাধারণ অভিনয় নৈপুণ্যের জন্য সুনাম কুড়িয়েছেন নওয়াজ উদ্দিন সিদ্দিকি। তাই তার নতুন ছবি ‘মাঝি- দ্য মাউন্টেন ম্যান’-এর প্রচারণায় বলিউড সুপারস্টার অভিনেতা সালমান খানকে কাছে পেলেন নওয়াজ উদ্দিন সিদ্দিকি। ‘মাঝি-দ্য মাউন্টেন ম্যান’ ছবির প্রসঙ্গে সালমান বলেন, কিক ও বাজরাঙ্গি ভাইজানের পর নওয়াজের নতুন ছবি মাঝি মুক্তি পেল। সেজন্য নওয়াজ ও তার টিমকে আমার শুভেচ্ছা। তাছাড়া আমি আশা করি নওয়াজের নতুন ছবিটিও বক্স অফিসে হিট করবে। সালমানের এই আশাবাদও যেন নওয়াজ ও সালমান ভক্তকুলে দারুণ সাড়া জাগিয়েছে। তাই ছবি মুক্তির পর থেকেই দর্শকরা ছবিটি দেখার জন্য হলগুলোতে রীতিমতো ভিড় জমিয়ে দিয়েছে। তাই ‘মাঝি-দ্য মাউন্টেন ম্যান’ ছবিটির আকাশচুম্বী সফলতা যেন শুধু সময়ের ব্যাপার।

নাজমুল আহমেদ তন্ময়

নির্বাচিত সংবাদ